ঢাকা, বুধবার 23 October 2019, ৮ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

সম্রাট লাপাত্তা?

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: ঢাকার মতিঝিল ক্লাব পাড়া সহ রাজধানীর ১১টি ক্লাবের আড়ালে ক্যাসিনো তথা জুয়ার ব্যবসার মূল নিয়ন্ত্রক ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট লাপাত্তা।খালেদ গ্রেফতার হওয়ার পরই কাকরাইলে যুবলীগের কার্যালয়ে অবস্থান নেন ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। ওই কার্যালয়ের সামনে হাজারখানেক নেতাকর্মীও অবস্থান নেন। রাত ৩টার পরও কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের ভিড়ে গত কয়েকদিন ধরে তিনি তার কাকরাইলের কার্যালয়ে (রাজমণি সিনেমা হলের উল্টোপাশে (পশ্চিম)।) অবস্থান করছিলেন বলে শোনা গেলেও এখন তার হদিস পাওয়া যাচ্ছে না।জল্পনা ছিল যে, সম্রাট দেশ ছাড়ার চেষ্টা করছেন। আবার এখন ‘গুজব’ আকারে জানা যাচ্ছে যে, গত রাতে সম্রাট ‘ছদ্মবেশে’ কার্যালয় থেকে বেরিয়ে গেছেন।

রাজধানীর ফকিরেরপুলের ইয়াংমেন্স ক্লাবে অবৈধ ক্যাসিনোর মালিক যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে সোমবার গ্রেফতারের পর বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল।

জানা গেছে, নগরীতে ক্যাসিনো ব্যবসায় খালেদের সঙ্গে রয়েছেন আরও কয়েকজন যুবলীগ নেতা। তাদেরই একজন ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। তিনি ‘ক্যাসিনো সম্রাট’ হিসেবে জুয়াড়িদের কাছে পরিচিত।

খালেদকে গ্রেফতারে পর সম্রাটও গ্রেফতার হচ্ছেন- এমন গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। এ কারণে সোমবার সারা রাত সম্রাটকে এক ধরনের পাহারা দিয়ে রাখেন তার কয়েকশ’ সমর্থক। এভাবেই বুধবার পর্যন্ত কাকরাইলে নিজের অফিসে অবস্থান করেন তিনি। কিন্তু বৃহস্পতিবার থেকে তাকে কোথাও দেখা যাচ্ছে না।

তাকে যদি গ্রেপ্তার করতে চাওয়া হতোই, কার্যালয়ে থাকা অবস্থায় ইচ্ছে করলেই তা সম্ভব ছিলো। তার ঠিকাদারি ব্যবসার কার্যালয় বিশেষ কোনো স্থান নয় যে, ভেতরে ঢুকতে বা গ্রেপ্তারে কারও অনুমতির প্রয়োজন ছিলো। তবুও সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছিলো এভাবে যে ‘গ্রেপ্তার এড়াতে’ সম্রাট কার্যালয় থেকে বের হচ্ছেন না।

এমন সচিত্র খবরও ছিল যে, রাজধানীর ক্লাবগুলোতে ‘ক্যাসিনো’ ব্যবসার বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চলমান অভিযানের কারণে সম্রাট তার নিরাপত্তারক্ষী ও সমর্থকদের দিয়ে অফিস ভবনটি ঘিরে রেখেছেন।

নাম না প্রকাশের শর্তে যুবলীগের পদধারী এক নেতা জানান, গত ১৮ সেপ্টেম্বর ফকিরাপুলের একটি ফুটবল ক্লাবে ‘ক্যাসিনো’ ব্যবসা চালানোর অভিযোগে যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তারের পর থেকে সম্রাট তার কার্যালয়ে অবস্থান নিয়েছেন।

গতকাল (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সম্রাটের কার্যালয়ে যান ডেইলি স্টার'র প্রতিবেদক এবং সেখানে তিনি প্রায় তিন ঘণ্টা অবস্থান করেন। তবে প্রতিবেদককে ভবনের ভেতরে প্রবেশ করতে না দেওয়ায় সম্রাট আদৌ সেখানে রয়েছেন কী না, তা নিশ্চিত হতে পারেনি পত্রিকাটি।

সম্রাটের সমর্থকরা আটতলা ভবনটির মূল ফটক ঘিরে রেখেছেন এবং কেউ ঢুকতে গেলেই বাধা দিচ্ছেন। কার্যালয়ের সামনে ৫০ জনেরও বেশি সমর্থককে পাহারা দিতে দেখা গেছে।

দলীয় পদবী প্রকাশে অস্বীকৃতি জানিয়ে যুবলীগ নেতা হিমেল বলেন, “সরকারের রোষানল থেকে বাঁচতে ভাই এই মুহূর্তে দেশের বাইরে যেতে চাইছেন। কিছুদিনের মধ্যে নতুন কোনো ইস্যু এসে গেলেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে।”

সম্রাটের খুব কাছের লোক দাবি করে এক ব্যক্তি জানান, সম্রাট চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে চাইছেন, পালাতে নয়।

তিনি আরো জানান, গতবছর সিঙ্গাপুরে হার্টের চিকিৎসা করিয়ে এসেছেন সম্রাট। চিকিৎসার প্রয়োজনেই আবার তার সেখানে যাওয়া দরকার।

সম্রাট ভবনটির কোন তলায় রয়েছেন, তার ঘুমের ব্যবস্থা কী এবং কীভাবে খাবার দেওয়া হচ্ছে- এই প্রতিবেদকে সবকিছু জানিয়ে ওই ব্যক্তি বলেন, “তিনি এখানে বেশ ভালোই আছেন।”

যুবলীগের অপর এক সূত্রে জানা গেছে, সম্রাটের সঙ্গে অন্তত শতাধিক সমর্থক এবং নিরাপত্তারক্ষী ভবনটির ভেতরে অবস্থান করছেন।

তাকে দেশত্যাগের অনুমতি দিতে সম্রাট বর্তমানে আওয়ামী লীগের ঊর্ধ্বতন ব্যক্তিদের রাজি করানোর চেষ্টা করছেন বলেও জানান তিনি।

ডেইলি স্টার প্রতিবেদক জানান, এ বিষয়ে নিশ্চিত হতে সম্রাটের সঙ্গে বেশ কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন তিনি।

দলের অনেক নেতা-কর্মীকে ওই এলাকায় আনাগোনা করতে দেখা যায়।

সম্রাটের কার্যালয় সংলগ্ন চায়ের দোকানে বসে এক তরুণকে বলতে শোনা যায়, “কিছুদিনের মধ্যেই এই দুর্দিনের অবসান ঘটবে। সম্রাট ভাই তখন আবার খেলা শুরু করবেন। তখন আর চার নয়, তিনি ছক্কা মারবেন।”

তাকে উদ্দেশ্য করে আরেক তরুণ বলছিলেন, “চিন্তা করো না, এই ঝড় (ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান) হঠাৎ করেই থেমে যাবে। ভাই যদি নিরাপদে থাকতে পারেন, তাহলে আর দুশ্চিন্তার কিছু নেই।”

এর মধ্যেই কয়েকজন এসে এই প্রতিবেদককে স্থান ত্যাগ করতে বলেন।

‘ক্যাসিনো’ ব্যবসার সঙ্গে সম্রাটের জড়িত থাকার অভিযোগ বিষয়ে জানতে চাইলে, পুলিশ সদরদপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (গণমাধ্যম) সোহেল রানা জানান, ‘ক্যাসিনো’ ব্যবসা পরিচালনার সঙ্গে জড়িত সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সম্রাটের ব্যাপারে সরকারের অবস্থান জানতে গত ২১ সেপ্টেম্বর সাংবাদিকেরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁনকে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, সম্রাটের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ পাওয়া গেলে তাকে গ্রেপ্তার করবে পুলিশ।

ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের গ্রামের বাড়ি ফেনী জেলার পরশুরাম উপজেলার সাহেব বাজার এলাকায়। তিনি প্রয়াত ফয়েজ উদ্দিন চৌধুরীর ছেলে। সম্রাট যুবলীগে খুবই প্রভাবশালী এক নেতা। তিনি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বিগত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। পরবর্তী কাউন্সিলে অনেকটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছাড়াই সভাপতি নির্বাচিত হন। এরপর থেকে যুবলীগের গুরুত্বপূর্ণ এ ইউনিটের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন তিনি। যুবলীগের দিবসভিত্তিক কর্মসূচি এবং রাজধানীতে আওয়ামী লীগের জনসভাগুলোতে সব সময়ই বড় শোডাউন থাকত সম্রাটের লোকজনের। যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী সম্রাটের নেতৃত্বাধীন যুবলীগের এ ইউনিটকে ‘শ্রেষ্ঠ সংগঠন’ হিসেবে ঘোষণাও দিয়েছেন।

খালেদ মাহমুদকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে পুলিশের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, সম্রাট রাজধানীর মতিঝিল সহ ১১টি ক্লাবে স্থাপিত ক্যাসিনো বা জুয়ার আড্ডার মূল নিয়ন্ত্রক।এগুলো থেকে তার প্রতি রাতের আয় আসতো প্রায় ৫০ লাখ টাকা।ক্যাসিনো স্থাপনের জন্য এককালীন অগ্রিম নিয়েছেন আরো কয়েক কোটি টাকা।তাছাড়া এসব ক্লাবগুলোকে কেন্দ্র করে মদ সহ মাদকের ব্যবসাও জমে উঠছিল।এসবই হতো সম্রাটের ছত্রছায়ায়।এছাড়া তিনি জুয়া নিজেও জুয়া খেলতে যেতেন সিঙ্গাপুরে। মাসে অন্তত ১০ দিন সিঙ্গাপুরে জুয়া খেলেন। এটি তার নেশা। সিঙ্গাপুরের সবচেয়ে বড় জুয়ার আস্তানা মেরিনা বে স্যান্ডস ক্যাসিনোতে পশ্চিমা বিভিন্ন দেশ থেকেও আসেন জুয়াড়িরা। কিন্তু সেখানেও সম্রাট ভিআইপি জুয়াড়ি হিসেবে পরিচিত। প্রথম সারির জুয়াড়ি হওয়ায় সিঙ্গাপুরের চেঙ্গি এয়ারপোর্টে তাকে রিসিভ করার বিশেষ ব্যবস্থাও আছে।

এয়ারপোর্ট থেকে মেরিনা বে স্যান্ডস ক্যাসিনো পর্যন্ত তাকে নিয়ে যাওয়া হয় বিলাসবহুল গাড়ি ‘লিমুজিন’-এ করে। সিঙ্গাপুরে জুয়া খেলতে গেলে সম্রাটের নিয়মিত সঙ্গী হন যুবলীগ দক্ষিণের নেতা আরমানুল হক আরমান, মোমিনুল হক সাঈদ ওরফে সাঈদ কমিশনার, সম্রাটের ভাই বাদল ও জুয়াড়ি খোরশেদ আলম। এদের মধ্যে সাঈদ কমিশনারের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। তিনি ১০ বছর আগে ঢাকায় গাড়ির তেল চুরির ব্যবসা করতেন। এখন তিনি এলাকায় যান হেলিকপ্টারে। এমপি হতে চান আগামী দিনে। এনিয়ে তোড়জোড়ও শুরু করে দিয়েছেন। দোয়া চেয়ে এলাকায় লাগাচ্ছেন পোস্টার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ