ঢাকা, বুধবার 25 September 2019, ১০ আশ্বিন ১৪২৬, ২৫ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

অ্যান্টার্কটিকা খুঁড়ে জলবায়ুর ভবিষ্যৎ দেখবেন বিজ্ঞানীরা

২৪ সেপ্টেম্বর , গার্ডিয়ান: অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশের নিচে চাপা পড়া দশ লাখ বছর আগের বরফ খুঁড়ে জলবায়ুর অতীত ও ভবিষ্যৎ খুঁজবেন বিজ্ঞানীরা। চমক জাগানিয়া এ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের খুব কাছাকাছি পৌঁছে গেছে অস্ট্রেলিয়ার অ্যান্টার্কটিক ডিভিশনের (এএডি) বিজ্ঞানীরা।

বরফ আচ্ছাদিত এ মহাদেশের উপরিভাগ থেকে ৩ কিলোমিটার গভীরে গিয়ে বরফ সংগ্রহের পরিকল্পনা সোমবার প্রকাশ করেছেন তারা।

হিমবাহ বিশেষজ্ঞ তাস ভ্যান ওমেন দ্য গার্ডিয়ানকে বলেন, পরবর্তী বছরগুলোতে জলবায়ুর কোন কোন সমস্যা সামনে আসতে পারে তা জানা যাবে এ গবেষণার মাধ্যমে।’

এবিসি নিউজ জানায়- ধারণা করা হচ্ছে, ২০২১ সালে এ বরফ খননের কাজ শুরু হবে এবং পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে ৪ বছর সময় লাগবে। ১ হাজার ২০০ কিলোমিটার দূরে অ্যান্টার্কটিকার মধ্যভাগে এএডির ৯ মিটার দৈর্ঘ্যরে আইস কোর ড্রিল মেশিন নিয়ে এ খনন কাজ চলবে।

স্টেইনলেস স্টিল, অ্যালুমিনিয়াম, ব্রোঞ্জ ও টিটানিয়াম দিয়ে আন্তর্জাতিক ও অস্ট্রেলিয়ার প্রযুক্তিতে তৈরি হয়েছে ড্রিলটি। অ্যান্টার্কটিকার গভীরে থাকা ওই বরফের বয়স ১৫ লাখ বছরেরও বেশি হবে বলে বিশ্বাস এএডির বিজ্ঞানীদের।

ভ্যান ওমেন বলেন, আমরাই ওই বরফগুলো দেখব। তুষারের ফাঁকে জমে থাকা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বুদবুদ নিয়ে গবেষণা করব। ওই বুদবুদই হল জলবায়ুর অতীত ইতিহাস জানার মেশিন। এর মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনের ভবিষ্যৎ তথ্যও পাওয়া যাবে। তিনি আরও বলেন, প্রায় ১০ লাখ বছর পূর্বে পৃথিবী ৪০ হাজার বছরের বরফযুগের চক্র থেকে ১ লাখ বছরের চক্রে স্থানান্তরিত হয়েছিল। কার্বন ডাই অক্সাইড সেই পরিবর্তনের সঙ্গে জড়িত। আমাদের বায়ুম-লে যে কার্বন ডাই অক্সাইড রয়েছে তাতে ভবিষ্যতে পৃথিবীতে দীর্ঘমেয়াদি পরিণতি কি ঘটবে তা বুঝতে সাহায্য করবে এ গবেষণা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ