ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 September 2019, ১১ আশ্বিন ১৪২৬, ২৬ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদ্রাসা জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চার অনন্য প্রতিষ্ঠান --ভিসি প্রফেসর ড. আহসান উল্লাহ

বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল (অনার্স-মাস্টার্স) ম্দারাসা কর্তৃক আয়োজিত মরণোত্তর ও অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দের বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠান গতকাল ২৫ শে সেপ্টেম্বর বুধবার মাদ্রাসার প্রাঙ্গণে চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে ও অধ্যাপক মোহাম্মদ জামাল উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর, বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক, লেখক, গবেষক ও শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ। পবিত্র কালামে পাক থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু করা হয়। জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের পর মনোজ্ঞ সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয় যা সবাইকে মুগ্ধ করে। উদ্বোধনী ও স্বাগত বক্তব্য পেশ করে বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল (অনার্স-মাস্টার্স) ম্দারাসার অধ্যক্ষ বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ ও গবেষক প্রফেসর ড. সাইয়েদ মুহাম্মদ আবু নোমান। এর পরপরই স্বরচিত কবিতা নজরে আকিদত উপস্থাপন করেন বায়তুশ শরফের পীর ছাহেব বাহরুল উলূম শাহ সূফী মাওলানা মোহাম্মদ কুতুব উদ্দিন (ম.জি.আ.)। মরণোত্তর এবং বিদায় শিক্ষক কর্মচারীবৃন্দকে ক্রেস্ট, উপহার সামগ্রী ও নগদ অর্থ প্রদানের মাধ্যমে সম্মাননা জানানো হয়। প্রাক্তন ছাত্রদের পক্ষ থেকে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন ডা. মুহাম্মদ ইলিয়াস,  মাহবুব কায়সার (ঢা.বি.), ড. মোহাম্মদ রুকন উদ্দিন (চ.বি.), ইফতেখার উদ্দিন (আই আই ইউ সি), বিদায়ী শিক্ষকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন মোহাম্মদ জাফর উল্লাহ ও মোহাম্মদ আব্দুল খালেক। প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন- বর্তমান সরকার মাদ্রাসা শিক্ষাকে যুগোপযুগী এবং বস্তাবমুখী করার জন্য ২০১৩ সালে ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা প্রতিষ্ঠা করেন। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরাও অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের ন্যায় মেধার ভিত্তিতে চাকুরী ও অন্যান্য ক্ষেত্রে সামান সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে। তাই তিনি মাদ্রাসা ছাত্রদেরকে ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা এর অধীনেই ফাযিল পাস, ফাযিল অনার্স ও কামিল মাস্টার্স এ লেখাপাড়া করে জাতীয় উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য জ্ঞান অর্জনের উপদেশ দেন। 

সভাপতির বক্তব্যে মোহাম্মদ কামাল হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বলেন- বাংলাদেশ এখন আর পূর্বের মতো দরিদ্র দেশ নয়। বিশ্বের বুকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাড়িয়েছে। একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চার বিকল্প নাই। ছাত্র-ছাত্রীদেরকে আধুনিক ও তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে এগিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

এতে আরো উপস্থিত ছিলেন-বায়তুশ শরফ আঞ্জুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ এর সহ-সভাপতি আলহাজ¦ মোহাম্মদ আমান উল্লাহ খান, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব লুৎফুল করিম, মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটি সাবেক সেক্রেটারী আলহাজ্ব মেহাম্মদ ইদ্রিস মিয়া, মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটি সদস্য বিশিষ্ট সমাজ সেবী আলহাজ্ব রফিক আহমদ, আলহাজ্ব মাওলানা কাজী নাছির উদ্দিন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম এর সাবেক পরিচালক ও সাবেক উপাধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা আবুল হায়াত মুহাম্মদ তারেক, মজলিসুল উলামা বাংলাদেশের মহাসচিব আলহাজ্ব মাওলানা মামুনর রশিদ নুরী, মাওলানা কাজী জাফর আহমদ, উপাধ্যক্ষ মাওলানা আমিনুল ইসলাম, শায়খুল হাদীস আল্লামা ফজলুল করিম, মাওলানা জয়নুল আবেদীন, মুহাদ্দীস মাওলানা মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, মাওলানা মোহাম্মদ আবু তাহের, মাওলানা ফরহাত আলম, প্রভাষক একরামুল হক, প্রভাষক আরিফুল আজম, মোহাম্মদ শাহ্জাহান সহ অত্র মাদ্রাসার সকল শিক্ষকবৃন্দ।

পরিশেষে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকদের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা, মরণোত্তর শিক্ষক ছাহেবানের রুহের মাগফিরাত কামনা, মাদ্রাসার উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি এবং কর্মরত শিক্ষক কর্মচারীবৃন্দের সুস্বাস্থ্য ও হায়াতে তয়্যেবা কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত পরিচালনা করেন বাহরুল উলূম শাহ সূফী হযরত মাওলানা মোহাম্মদ কুতুব উদ্দিন (ম.জি.আ.)। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ