ঢাকা, সোমবার 14 October 2019, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

আবরার হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে উত্তাল বুয়েট

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকারীদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আজীবন বহিষ্কার, স্বল্পতম সময়ে খুনিদের শাস্তি নিশ্চিত করতে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে এই মামলার বিচার, শেরে বাংলা হলের প্রভোস্টকে প্রত্যাহার ও পরিবারকে ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ সাত দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে আল্টিমেটাম দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। বেলা ১১টার দিকে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিলের পর এই দাবি ঘোষণা করেন বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

দাবি আদায়ে তারা বুয়েট ক্যাম্পাসে বিকেল ৫টা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন। এই সময়ের মধ্যে বুয়েটের ভিসি এসে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দাবির বিষয়ে আলোচনা না করলে আগামীকাল থেকে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণাও দেন তারা।

আবরার হত্যার ঘটনার দুদিন পেরিয়ে গেলেও ভিসির ক্যাম্পাসে না আসা ও নীরবতার জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করেন শিক্ষার্থীরা। কর্সূচি ঘোষণার আগে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেন তারা। এ সময় ছাত্র রাজনীতির নামে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, র‌্যাগিংয়ের নামে নির্যাতন বন্ধের দাবি জানানো হয়। ‘খুনিদের ঠিকানা, এই বুয়েটে হবে না; আমার ভাই কবরে, খুনি কেন বাহিরে; প্রশাসন নীরব কেন, জবাব চাই দিতে হবে; ফাঁসি ফাঁসি ফাঁসি চাই, খুনিদের ফাঁসি চাই; আমরা ভাই মরল কেন, জবাব চাই দিতে হবে’ ইত্যাদি শ্লোগানও দেন তারা।

এছাড়া সাত দফা দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

৭ দফা দাবি: 

১.খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তি; 

২.৭২ ঘণ্টার মধ্যে নিশ্চিতভাবে শনাক্তকৃত খুনিদের সকলের ছাত্রত্ব আজীবন বহিষ্কার; 

৩.দায়েরকৃত মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের অধীনে স্বল্পতম সময়ে নিষ্পত্তি; 

৪.বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি কেন ৩০ ঘণ্টা অতিবাহিত হবার পরও ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়নি তার জবাব সশরীরে ক্যাম্পাসে এসে আজ বিকেল ৫টার মধ্যে দিতে হবে এবং ডিএসডব্লিউ স্যার কেন ঘটনাস্থল থেকে পলায়ন করেছেন তার কারণ বিকেল ৫টার তাকে দিতে হবে; 

৬.আবাসিক হলগুলোতে র‍্যাগের নামে ভিন্ন মতাবলম্বীদের ওপর সকল প্রকার শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন বন্ধে প্রশাসনকে জড়িত সকলের ছাত্রত্ব বাতিল করতে হবে। একই সঙ্গে আহসানউল্লাহ হল এবং সোহরাওয়ার্দী হলের পূর্বের ঘটনাগুলোতে জড়িত সকলের ছাত্রত্ব বাতিল ১১ নভেম্বর, বিকেল ৫টার মধ্যে নিশ্চিত করতে হবে; 

৭. রাজনৈতিক ক্ষমতা ব্যবহার করে আবাসিক হল থেকে ছাত্র উৎখাতের ব্যাপারে অজ্ঞ থাকা এবং ছাত্রদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হওয়ায় শেরে বাংলা হলের প্রভোস্টকে ১১ নভেম্বর, বিকেল ৫টার মধ্যে প্রত্যাহার করতে হবে এবং মামলা চলাকালীন সকল খরচ এবং আবরারের পরিবারের সকল ক্ষতিপূরণ বুয়েট প্রশাসনকে বহন করতে হবে। 

এর আগে সোমবার (৭ অক্টোবর) চার দফা দাবিতে আন্দোলনে নামার ঘোষণা দেয় বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। রাতে বুয়েট কেন্দ্রীয় মসজিদে আবরারের জানাজার পর বিক্ষোভ শেষে আন্দোলন করার ঘোষণা দেন তারা।

উল্লেখ্য, গত রবিবার রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলে ছাত্রলীগের কিছু সন্ত্রাসীর হাতে নির্দয় পিটুনির শিকার হয়ে মারা যান বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ। এই ঘটনায় গতকাল নিহতের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে চকবাজার থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। গতকাল বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান রাসেল, সহ-সভাপতি মুস্তাকিম ফুয়াদ, সহ-সম্পাদক আশিকুল ইসলাম বিটুসহ ৯ জনকে গ্রেফতারের কথা জানিয়েছে পুলিশ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ