ঢাকা, বৃহস্পতিবার 10 October 2019, ২৫ আশ্বিন ১৪২৬, ১০ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

আরও তিন ছাত্র ৫ দিনের রিমান্ডে ॥ আটক অভি ডিবি কার্যালয়ে

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িত আরও তিন শিক্ষার্থীকে পাঁচ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত গতকাল বুধবার এই আদেশ দেন।
তিন আসামী হলেন বুয়েটের ছাত্র শামসুল আরেফিন (২১), মনিরুজ্জামান (২১) ও আকাশ হোসেন (২১)। তাঁদের মধ্যে মনিরুজ্জামান বুয়েটের ওয়াটার রিসোর্সেস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। আকাশ একই ব্যাচের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের এবং শামসুল মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ১৭তম ব্যাচের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। মনিরুজ্জামান ও আকাশ হোসেন আবরার হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামী।
এর আগে আবরার হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার অপর ১০ জন ছাত্রকে পাঁচ দিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।
রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা আদালতকে বলেন, বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদকে পরিকল্পিতভাবেই নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের হলের ভেতরে ঢুকতে দেননি আসামীরা। নৃশংস এই হত্যাকান্ডের সঙ্গে আর যাঁরা জড়িত, তাঁদের গ্রেপ্তার করার জন্য এই আসামীদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা জরুরি।
রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হেমায়েত উদ্দীন খান আদালতকে বলেন, আবরার ফাহাদ ছিলেন নিরীহ ছাত্র। বিনা অপরাধে বুয়েটের ছাত্ররা আবরার ফাহাদকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছেন। গ্রেপ্তার তিন আসামীর মধ্যে দুজনের পক্ষে আদালতে কোনো আইনজীবী ছিলেন না।
তবে শামসুল আরেফিনের পক্ষের আইনজীবীরা আদালতে বলেন, শামসুল আরেফিন ছাত্রলীগের কোনো নেতা নন। একজন সাধারণ ছাত্র। ঘটনার দিন রাত আটটার সময় শামসুল আরেফিন ঢাকার একটি হলে সিনেমা দেখছিলেন। তিনি এ ঘটনার সঙ্গে কোনোভাবেই জড়িত নন।
মনিরুজ্জামান ও আকাশের আইনজীবী ছিল না। আদালত তাঁদের কাছে জানতে চান, তাঁরা কোনো কিছু বলতে চান কি না? তখন আকাশ আদালতের কাছে দাবি করেন, তিনিও আবরার ফাহাদ হত্যাকাুের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। আর মনিরুজ্জামান আদালতে কোনো কথা বলেননি।
সব পক্ষের বক্তব্য শুনে আদালত আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার তিন আসামীর প্রত্যেককে পাঁচ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন। আদালতে এ তিন আসামীকে হাতকড়া পরিয়ে কাঠগড়ায় তোলা হয়।
এর আগে আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার অপর ১০ জন ছাত্রকে পাঁচ দিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ১০ আসামীকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। আবরার ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। তিনি থাকতেন বুয়েটের শেরেবাংলা হলের নিচতলায় ১০১১ নম্বর কক্ষে। গত রোববার রাতে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী। আবরার হত্যার ঘটনায় ১৯ জনকে আসামী করে তাঁর বাবা বরকত উল্লাহ ঢাকার চকবাজার থানায় মামলা করেছেন।
প্রথমে মামলার এজাহারভুক্ত ১০ আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়। আর মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করা হয় আরও তিনজনকে। আবরার হত্যার ঘটনায় গত সোমবার বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফুয়াদ হোসেন, অনীক সরকার, মেফতাহুল ইসলাম, ইফতি মোশারেফ, বুয়েট ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান ওরফে রবিন, গ্রন্থ ও প্রকাশনা সম্পাদক ইশতিয়াক আহমেদ ওরফে মুন্না, ছাত্রলীগের সদস্য মুনতাসির আল জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম ওরফে তানভীর ও মোহাজিদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
আবরারের বন্ধু অভি ডিবি কার্যালয়ে
আবরার ফাহাদ হত্যাকান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার এক সহপাঠীকে আটক করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র শাখাওয়াত ইকবাল অভিকে গতকাল বুধবার সকালে ঢাকার হাজারীবাগ থেকে আটক করা হয়।
 গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার আরাফাত লেনিন বলেন, “অভি আবরারের বন্ধু। তারা বুয়েটে একই বিষয়ে একই ব্যাচে পড়ে।”
আবরারের বাবার করা হত্যা মামলায় ১৯ জনের মধ্যে অভির নাম নেই জানিয়ে তিনি বলেন, “তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আটক করা হয়েছে।”
রোববার গভীর রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের সিঁড়ি থেকে আবরারের লাশ উদ্ধারকরা হয়। বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা আবরারকে ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে পিটিয়ে হত্যা করে বলে হলের শিক্ষার্থীদের অভিযোগ। আবরারের বাবা কুষ্টিয়াবাসী অবসরপ্রাপ্ত ব্র্যাককর্মী বরকতুল্লাহ মোট ১৯ জনকে আসামী করে চকবাজার থানায় একটি মামলা করেছেন। ওই মামলায় মঙ্গলবার পর্যন্ত মোট ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মামলা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে গোয়েন্দা পুলিশকে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ