ঢাকা, শুক্রবার 18 October 2019, ৩ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

কাশ্মীর উত্তপ্ত

১৭ অক্টোবর, রয়টার্স : মুঠোফোনের সংযোগ চালু হলেও ভারতের কাশ্মীর উপত্যকায় রক্তক্ষয় থামছে না। এক দিনেই সেখানে পাঁচজনের প্রাণ ঝরে গেল। গতকাল বুধবার তিন বিচ্ছিন্নতাবাদীকে হত্যার কথা জানিয়েছে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী। অন্যদিকে সন্দেহভাজন জঙ্গিদের গুলিতে নিহত হয়েছেন দুই বেসামরিক নাগরিক।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, আগস্টে বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর অন্যতম একটি রক্তাক্ত দিনের সাক্ষী হলো কাশ্মীর।

কাশ্মীরে আরোপ করা নিষেধাজ্ঞার কিছু তুলে নেওয়া হয়েছে ধীরে ধীরে। এরই অংশ হিসেবে ৭২ দিন পর গত সোমবার প্রিপেইড মুঠোফোনের সংযোগ চালু করা হয়। গত বৃহস্পতিবার কাশ্মীরে যাওয়ার ক্ষেত্রে পর্যটকদের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে। তবে ইন্টারনেট সংযোগ এখনো বন্ধ।

৫ আগস্ট ভারতের সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের মাধ্যমে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদ করে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে বিভক্ত করার ঘোষণা দেওয়া হয়। ওই সময় বিক্ষোভের আশঙ্কায় কাশ্মীরে ফোন ও ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেয় সরকার। এ ছাড়া কেন্দ্রীয় সরকার বিপুল পরিমাণে বাড়তি সেনা মোতায়েন করে। রাজনৈতিক নেতাদের বন্দী করা হয় এবং পর্যটকদের কাশ্মীর ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়।।

পুলিশের দুটি সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সৈন্যরা দক্ষিণ কাশ্মীরের একটি গ্রামে অভিযান চালালে বন্দুকযুদ্ধে তিন জঙ্গি নিহত হয়।

কাশ্মীর পুলিশ এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘এই সংঘর্ষে তিন সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে। তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গোলাবারুদসহ নানা সামগ্রী উদ্ধার করা হয়েছে।’

গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার অনুমতি না পাওয়ায় নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এ ঘটনায় পুলিশ বা সেনা কেউ হতাহত হয়নি।

সূত্র জানায়, উপত্যকায় সহিংসতা রোধে নিরাপত্তা বাহিনী বন্দুকযুদ্ধের ঘটনাস্থলের কাছে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। জঙ্গিরা নিহত হওয়ার পর ভারতবিরোধী কাশ্মীরি অধিবাসীদের অনেকে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের লক্ষ্য করে পাথর ছুড়তে জড়ো হয়।

পুলিশ জানায়, দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় একটি পৃথক ঘটনায় সন্দেহভাজন জঙ্গিরা মধ্যভারতের ছত্তিশগড় রাজ্যের এক শ্রমিককে গুলি করে হত্যা করেছে। দুই ব্যক্তি কাকাপোরা এলাকায় একটি রেলপথ ধরে চলতে থাকা ইটভাটার ওই শ্রমিকের পথ রোধ করে। এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘তাঁর মাথায় গুলি করা হয়েছিল।’

অন্য একটি ঘটনায় কাশ্মীরের দক্ষিণ শোপিয়ান জেলায় বন্দুকধারীদের গুলিতে এক ফল ব্যবসায়ী মারা গেছেন। এ ঘটনায় আরেক ব্যক্তি গুরুতর আহত হন।

ভারতের জম্মু ও পাঞ্জাবের প্রতিরক্ষা কেন্দ্রগুলোতে ‘কমলা সতর্কতা’ জারি করা হয়েছে। ভারতীয় গোয়েন্দা সূত্রে জঙ্গি হামলার আশঙ্কার কথা জানার পরেই এই সতর্কতা জারি করা হয়।

ভারতের জম্মু ও পাঠানকোটে থাকা ভারতীয় বিমানবাহিনীর এয়ারবেসে কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সতর্কতায় বলা হয়েছে, গোয়েন্দা বাহিনীর কাছে গত বুধবার গোপন সূত্রে খবর আসে, যেকোনো সময় হামলা হতে পারে। ফলে এ ধরনের হামলা রোধে আগাম ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

এর আগেও জম্মু ও পাঞ্জাবের প্রতিরক্ষা কেন্দ্রগুলোতে উচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। কিন্তু কয়েক দিন আগে সে সতর্কতার মাত্রা কমিয়ে দেওয়া হয়। এর পরেই ভারতীয় গোয়েন্দা সূত্রে জঙ্গি হামলার আশঙ্কার কথা জানানো হতেই ফের সতর্কতা জারি করা হয়।

গত সেপ্টেম্বরে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলো জানিয়েছিল, ৮ থেকে ১০ জনের জয়শ-ই-মোহাম্মদ জঙ্গিদল ভারতে প্রবেশ করেছে। তারাই প্রতিরক্ষা কেন্দ্রগুলোতে হামলার পরিকল্পনা করছে। এসব জঙ্গি আত্মঘাতী বাহিনীর সদস্য। তারা মূলত জম্মু ও কাশ্মীরের এবং পাঞ্জাবের বিমানবাহিনীর ঘাঁটিতে হামলার পরিকল্পনা করছে।

এর পরেই গোয়েন্দারা জানান, পাঞ্জাব সীমান্ত দিয়ে জঙ্গি অনুপ্রবেশ ঘটেছে। তারা পাঞ্জাবেই ঘোরাফেরা করছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীকে টার্গেট করে হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছে তারা। গোয়েন্দাদের কাছ থেকে এ খবর পাওয়ার পরেই পাঞ্জাব ও কাশ্মীরজুড়ে কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

পাশাপাশি পাঠানকোট, জম্মুর শ্রীনগর ও অরবিন্দপুরায় ‘হাই অ্যালার্ট’ জারি করা হয়েছে। আর পাঠানকোটের বিমানবাহিনীর ঘাঁটিতে বিশেষ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। মূলত ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপের সিদ্ধান্তের পরেই ভারতে জঙ্গিদের নাশকতার চালানোর ছক বেড়েছে বলে বিশেষজ্ঞ মহলের মত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ