ঢাকা, বুধবার 30 October 2019, ১৫ কার্তিক ১৪২৬, ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

মোদী সরকারের ‘বাছাই’ করা ইইউ এমপিদের দল কাশ্মীর যাচ্ছে

২৯ অক্টোবর, আনন্দবাজার, এনডিটিভি : ৫ অগাস্ট কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিষয়ক সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ এবং তার পরে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেওয়ার পরে এই প্রথম কোনও বিদেশি প্রতিনিধিদল কাশ্মীরে যাচ্ছে। সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গে বৈঠক করেন ২৮ জনের এই প্রতিনিধিদল।

তবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন নিজেই জানিয়েছে, এটি সরকারি সফর নয়। বিদেশি এমপিরা প্রত্যেকেই বেসরকারি একটি সংস্থার(এনজিও) আমন্ত্রণে এ দেশে এসেছেন। এই প্রতিনিধিদলের অনেকেই আবার অতি দক্ষিণপন্থী, শরণার্থী-বিরোধী বলে পরিচিত দলের সদস্য। নয়াদিল্লিস্থ অনেক ইউরোপীয় দূতাবাসও এই সফর সম্পর্কে অবগত নন।

বিরোধীদের অভিযোগ, আন্তর্জাতিক মহলে প্রশ্নের মুখে পড়ে বিজেপি সরকারই বাছাই করা এমপিদের আমন্ত্রণ জানিয়ে কাশ্মীরে পাঠাচ্ছে। প্রতিনিধিদলের সদস্য বি এন ডান বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের সবটাই ব্যাখ্যা করেছেন। কিন্তু আমরা সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলে বাস্তব পরিস্থিতি জানার চেষ্টা করব।

প্রতিনিধিদল প্রথমে সেনা সদর দফতরে যাবেন এবং সেখানে তাদের সার্বিক পরিস্থিতি ব্রিফিং করা হবে।

কংগ্রেসের জয়রাম রমেশের অভিযোগ, এটা দেশের পার্লামেন্টের অপমান। পিডিপি নেত্রী ও সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবার অভিযোগ, কাশ্মীরে স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরে এসেছে বলে বোঝাতে মরিয়া সরকার অবিরাম কূটনৈতিক ভুল করছে। ফ্যাসিবাদী, অতি দক্ষিণপন্থী ও শরণার্থী-বিরোধী ইউরোপীয় এমপিদের ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। মেহবুবা তাঁর মেয়ের মাধ্যমে টুইট করে প্রশ্ন তোলেন, ওঁরা কি তিন জন সাবেক মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে পারেন না?’’ তাঁর প্রশ্ন, ‘‘৩৭০ রদ করা যদি জম্মু ও কাশ্মীরকে ভারতের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়, তা হলে রাহুল গান্ধীকে কাশ্মীরে ঢুকতে বাধা দেওয়া হচ্ছে কেন? ফ্যাসিবাদী না হলে, মনে মুসলিমদের প্রতি ঘৃণা না থাকলে কাশ্মীরের টিকিট পাওয়া সম্ভব নয়!’’ বিজেপির মধ্যে থেকে সুব্রহ্মণ্যম স্বামী দাবি তুলেছেন, ‘‘এটা জাতীয় নীতির বিকৃতি। অবিলম্বে এই অনৈতিক সফর বাতিল করা হোক।’’

ইউরোপীয় দলটিতে ব্রেক্সিট পার্টি, ফ্রান্সের ল পেন’স পার্টি, বেলজিয়ামের ভিবি-র মতো অতি দক্ষিণপন্থী দলের এমপিরা রয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ