ঢাকা, বৃহস্পতিবার 14 November 2019, ৩০ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

খোকা স্থিতিশীল, মৃত্যু নিয়ে গুজব না ছড়ানোর অনুরোধ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকার খোকার বিষয়ে মৃত্যুর ভুয়া তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে না ছড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতৃবৃন্দ।তাঁর অবস্থা অপরিবর্তিত।নিউ ইয়র্কের ম্যান‌হ্যাটানের মেমোরিয়াল স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যান্সার সেন্টারে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি। 

শুক্রবার (১ নভেম্বর) হাসপাতাল থেকে খোকার বিশেষ সহকারি সিদ্দিকুর রহমান মান্না জানান, খোকা মাঝেমধ্যে দর্শনার্থীদের সাথে কথাও বলছেন। তবে কথায় কোন জোর নেই। খুবই দুর্বল।

নিউইয়র্ক সময় রাত সাড়ে ৮টায় মান্না আরও বলেন, সাদেক হোসেন খোকার শারিরিক অবস্থা এতটাই দুর্বল যে, ক্যান্সারের ওষুধ প্রয়োগ করা যাচ্ছে না।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খোকার মারা যাবার যে তথ্য প্রচারিত হয়েছে বা হচ্ছে তা 'খুবই অমানবিক' বলে মন্তব্য করেছেন হাসপাতালে খোকার শয্যাপাশে থাকা বিএনপি নেতা গিয়াসউদ্দিন ও মিল্টন ভূইয়া।খোকার পাশে রয়েছেন তার স্ত্রী, দুই পুত্র, কন্যা, জামাতাসহ স্বজনেরা। তারা খোকার দ্রুত আরোগ্যের জন্য দোয়া চেয়েছেন।

খোকার বিষয়ে ভুয়া তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে না ছড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতৃবৃন্দ। হাসপাতাল থেকে বিএনপি নেতা মিল্টন ভূইয়া, গিয়াসউদ্দিন এবং চিকিৎসার খোঁজ-খবর রাখছেন এমন নেতার মধ্যে বেবী নাজনীন, অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন, আকতার হোসেন বাদল, এম এ বাতেন, কাজী আজম, আবু তাহের, হাবিবুর রহমান সেলিম রেজা দেশবাসীর দোয়া চেয়েছেন।

ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা ২০১৪ সালের ১৪ মে চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্র যান। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী নিউ ইয়র্ক সিটির কুইন্সের একটি বাসায় থেকে চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। সপ্তাহ তিনেক আগে মুখে ঘা দেখা দিলে এই হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়।

৬৭ বছর বয়সী খোকার দেহে লাগাতার ওষুধ সেবনে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে বলে জানান চিকিৎসকরা। গত ১৮ অক্টোবর হাসপাতালে ভর্তি করার পর ২৭ অক্টোবর তার শ্বাসনালী থেকে টিউমার অপরাসরণ করা হয়।

সাদেক হোসেন খোকার অবস্থার অবনতির খবর পেয়ে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির অনেক নেতাকর্মী হাসপাতালে গিয়ে তার খোঁজ-খবর রাখছেন। বুধবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস মসজিদে তার জন্য দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

চিকিৎসার জন্য ট্যুরিস্ট ভিসায় সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন খোকা। পরে চিকিৎসা অব্যাহত রাখতে যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্যে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেছিলেন তিনি। তা এখনও মঞ্জুর হয়নি।

এদিকে, তার বাংলাদেশি পাসপোর্ট নবায়নের আবেদন নিউ ইয়র্ক কনসুলেটে জমা রয়েছে বলে ঘনিষ্ঠজনরা জানিয়েছেন। তারা বলছেন, মারা গেলে যেন দেশে নিয়ে তাকে দাফন করা হয় সেই অনুরোধ করেছেন সাদেক হোসেন খোকা।

কনসুলেটের পাসপোর্ট বিষয়ক ফার্স্ট সেক্রেটারি শামীম হোসেন দুপুরে বলেন, মৃতদেহ দেশে নেওয়ার অনুমতির জন্যে পাসপোর্টের প্রয়োজন নেই। পুরনো অর্থাৎ মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্ট পেলেই আমরা লাশ বাংলাদেশে নেওয়ার অনুমতি দিয়ে আসছি।মুক্তিযোদ্ধা খোকা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর নেতৃত্বাধীন ন্যাপ থেকে বিএনপিতে এসেছিলেন শুরুতেই। ব্রাদার্স ইউনিয়নের সূত্রে বিএনপির ঢাকা মহানগরের সাবেক সভাপতি খোকার ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেও পরিচিত রয়েছে।

১৯৯১ ও ২০০১ সালে ঢাকার সূত্রাপুর-কোতোয়ালি আসন থেকে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।সাদেক হোসেন খোকা অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের নির্বাচিত মেয়র এবং খালেদা জিয়ার মন্ত্রিসভার মৎস্য ও পশু সম্পদমন্ত্রী ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ