ঢাকা, মঙ্গলবার 5 November 2019, ২১ কার্তিক ১৪২৬, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

অবৈধ সম্পদের বিষয়ে ‘খোলামেলা’ তথ্য দিচ্ছেন না জি কে শামীম

স্টাফ রিপোর্টার : অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় ঠিকাদার এস এম গোলাম কিবরিয়া (জি কে) শামীমকে দ্বিতীয় দিনের মত জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কর্মকর্তারা। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে একটি দল তাকে জিজ্ঞাসাবাদদ  করেছেন বলে দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য জানিয়েছেন।
সাত দিনের রিমান্ডে থাকা জি কে শামীমকে এর আগে রোববার দুপুরে কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে দুদকে আনা হয়। প্রথম দিন দুপুর সোয়া ২টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত তাকে দুদক কর্মকর্তারা জিজ্ঞাসাবাদ করেন।
জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে দুদকের এক কর্মকর্তা বলেন, জি কে শামীম তার অবৈধ সম্পদের বিষয়ে ‘খোলামেলা’ তথ্য দিচ্ছেন না।কৌশলে তার কাছ থেকে তথ্য জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।
২৭ অক্টোবর দুদকের আবেদেনে ঢাকার জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মো. আল মামুন তাকে সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন। যুবলীগ ঢাকা দক্ষিণের বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ এবং যুবলীগ নেতা পরিচয়ে ঠিকাদারি ব্যবসা করে আসা জি কে শামীমকে এদিন আলাদাভাবে আদালতে হাজির করে ১০ দিন করে রিমান্ড চেয়েছিল দুদক। দুই মামলাতেই দুদকের পক্ষে রিমান্ড শুনানি করেন দুদক আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।
গত ২১ অক্টোবর দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ খালেদ ও শামীমের বিরুদ্ধে মামলা দুটি দায়ের করা হয়।
জি কে শামীমের বিরুদ্ধে মামলা করেন দুদকের উপ-পরিচালক মো. সালাউদ্দিন। ‘অবৈধ উপায়ে জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ’ ২৯৭ কোটি আট লাখ ৯৯ হাজার ৫৫১ টাকার সম্পদ অর্জন ও ভোগদখল করার অভিযোগ আনা হয় সেখানে।
আর খালেদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে মামলাটি করেন দুদকের আরেক উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম। এই মামলায় খালেদের বিরুদ্ধে পাঁচ কোটি ৫৮ লাখ ১৫ হাজার ৮৫৯ টাকার অবৈধ সম্পদের মালিক হওয়ার অভিযোগ আনা হয়।
গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার ক্লাবপাড়ায় অভিযান শুরুর প্রথমদিনেই গুলশানের বাসা থেকে খালেদকে ধরা হয়। তার বাসা থেকে পাওয়া যায় ৫৮৫টি ইয়াবা, বিপুল পরিমাণ বিদেশি মুদ্রা এবং অবৈধ অস্ত্র। একই সঙ্গে অভিযান চলে ফকিরাপুল ইয়ংমেনস ক্লাবে। সেখানে পাওয়া যায় মদ আর জুয়ার বিপুল আয়োজন; সেইসঙ্গে ২৪ লাখ টাকা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ