ঢাকা, শনিবার 9 November 2019, ২৫ কার্তিক ১৪২৬, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

শপিংমল ও গাড়িতে আটকা শতাধিক বন্যার কবলে ইংল্যান্ড

৮ নবেম্বর, দ্য গার্ডিয়ান : ভারী বর্ষণে সৃষ্ট বন্যার কবলে ইংল্যান্ড। দেশটির শতাধিক এলাকায় জরুরি সতর্কত জারি করা হয়েছে। ডুবে গেছে রাস্তা-ঘাট। বন্ধ হয়ে আছে যান চলাচল। গত বৃহস্পতিবার রাতভর মুষুলধারে বৃষ্টি হয়েছে একাধিক শহরে। এর মধ্যে শেফিল্ড শহরে বৃষ্টির প্রকোপ এতটাই বেশি ছিল যে, বাড়ি যেতে পারেননি শতাধিক মানুষ। শপিংমলে, গাড়ির ভেতরে রাত কাটিয়েছেন তারা। রটারহ্যাম শহরে নৌকা দিয়ে আটকা পড়া ব্যক্তিদের উদ্ধার করেছে দমকলকর্মীরা।  স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, আবহাওয়ার অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বিঘিœত হচ্ছে রেল ও সড়ক যোগাযোগ সেবা।  গত বৃহস্পতিবার নটিংহামশায়ারের ম্যান্সফিল্ডে ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে। সেখান থেকে খালি করা হয়েছে ৩৫টি বাড়ি। সেখানে রাইটন নদী ফুলে ওঠার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সরিয়ে নেয়া হয়েছে বহু মানুষকে। শেফিল্ডে মিডোহল সেন্টারে রাত কাটাতে বাধ্য হয়েছেন কয়েকশ’ মানুষ। রটারহ্যাম বোরো কাউন্সিল বাসিন্দাদের ঘরের ভেতর থাকতে আহ্বান জানিয়েছে। অত্যধিক প্রয়োজনীয় কাজ ছাড়া ঘর ছেড়ে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। এছাড়া, দক্ষিণ ইয়র্কশায়ার পুলিশ জানিয়েছে, ডনকাস্টার, বেন্টলি, টল বার ও স্কাওথোর্পের অবস্থাও বেগতিক।

সরকারি সংস্থা এনভায়রনমেন্ট এজেন্সির বন্যাকালীন সময়ের ব্যবস্থাপক ক্রিস ওয়াইল্ডিং দেশবাসীকে ফুলে ওঠা নদী থেকে দূরে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। এছাড়া, বন্যার পানিতে গাড়ি চালাতে নিষেধ করেছেন। বলেছেন, কেবল ৩০ সেন্টিমিটার বহমান পানির স্রোতই যেকোনো গাড়ির গতিপথ পাল্টে দিতে সক্ষম। বন্যার ঝুঁকি কমাতে আমরা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কাজ করছি। আমাদের মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা কাজে নামার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। এদিকে, প্রতিকূল আবহাওয়া বিবেচনায় নিয়ে বাতিল করা হয়েছে একাধিক রেল সেবা। বন্যার পানিতে ডুবে গেছে বহু রেললাইন। একাধিক রেল সংস্থা যাত্রীদের রেলে ভ্রমণ না করতে আহ্বান জানিয়েছে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ