ঢাকা, শনিবার 9 November 2019, ২৫ কার্তিক ১৪২৬, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

কুমারখালীতে আদালতের নির্দেশে দুইমাস পর কবর থেকে কলেজ ছাত্রীর লাশ উত্তোলন 

কুমারখালী সংবাদদাতা : কুমারখালীতে দাফনের প্রায় দুইমাস পরে কবর থেকে সালমা (১৯) নামক এক কলেজ ছাত্রীর লাশ উত্তোলন করেছে পুলিশ। বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগ আসায় আদালতের নির্দেশে এই লাশ উত্তোলন করা হয়। গত বৃহস্পতিবার ৭ নবেম্বর সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খানের উপস্থিতিতে কুমারখালী উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের বাগবাড়ীয়া-ওয়াশী কবরস্থান থেকে এই লাশ উত্তোলন করা হলো। বাগবাড়ীয়া গ্রামের মোঃ সবদার জোয়ার্দারের মেয়ে সালমা পান্টি ডিগ্রী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান জানান, বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ অনুসারে লাশ উত্তোলন করেছে পুলিশ। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই কামরুল হাসান জানান, বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে পুনঃ তদন্তের জন্য লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। জানা যায়, মামলার বাদী পক্ষের তৎকালীন সুরতহাল রিপোর্ট মনপুত না হওয়ায় কুষ্টিয়ার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী ২য় আদালতে লাশ পুনঃসুরতহাল ময়না তদন্তের জন্য আবেদনের প্রেক্ষিতে লাশ উত্তোলনের নির্দেশ দেয়। লাশ উত্তোলন শেষে এলাকাবাসী সালমা হত্যার সুষ্ঠু বিচার ও হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

এজাহার সূত্রে জানা যায়, পান্টি ডিগ্রী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র মোঃ শাকিল (২১) সালমার সাথে প্রেমের অভিনয় করে নানাভাবে উত্যক্ত করতে থাকে। এক পর্যায়ে সামাজিকভাবে সালমাকে অন্যত্র বিয়ে দেওয়া হয়। সালমা স্বামীর সাথে সংসার করাকালীন সময়ে শাকিল নানাভাবে হুমকি দেয় এবং স্বামীকে ছেড়ে আসার কথা বলে। সালমা শাকিলের কথায় কান না দেওয়ায় সে তার স্বামীর নিকট বিভ্রান্তমূলক কথা বার্তা বলে, এতে এক পর্যায়ে সালমার সংসারে অশান্তিদেখা দেয়। গত ২৯/০৮/১৯ইং তারিখে সালমা এইচ এস সি পরীক্ষার রেজাল্ট সিট তোলার জন্য কলেজে গেলে শাকিল তার পিছু নিয়ে বিভিন্নভাবে বোঝাতে থাকে স্বামীকে তালাক দিয়ে তাকে বিয়ের করার জন্য। এভাবে শাকিলের কারণে এক পর্যায়ে সালমা তার স্বামীকে তালাকের নোটিশ পাঠায়। গত ০৯/০৯/১৯ ইং তারিখে সকালে সালমাকে বাড়িতে না পাওয়া গেলে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে সকাল সাড়ে ৯ টার সময় তাকে মৃত অবস্থায় শাকিলের বসত ঘরে আড়ার সাথে ওড়নায় পেঁচানো ঝুলন্ত অবস্থায় লাশ পাওয়া যায়। এঘটনায় সালমার বাবা সবদার জোয়ার্দার বাদী হয়ে শাকিলসহ মোট সাত জনের বিরুদ্ধে কুমারখালী থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নং ১০, তাং ১২/০৯/১৯।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ