ঢাকা, শনিবার 9 November 2019, ২৫ কার্তিক ১৪২৬, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

খুলনার সড়কে কমছে ফিটনেসহীন গাড়ি ও লাইসেন্সহীন ড্রাইভার

খুলনা অফিস : সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকার সড়ক পরিবহণ আইন ২০১৮ সংশোধন করে। যেখানে আইন অমান্যকারীদের জন্য রয়েছে বিপুল অর্থ জরিমানা ও অনাদায়ে জেল। আর এই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে নিজেদের ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং গাড়ির কাগজপত্র হাল নাগাদ করতে প্রতিদিন হাজার হাজার গ্রাহক ভিড় করছে বিআরটিএ অফিসে। গ্রাহকদের কাগজপত্র সংশোধন এবং হালনাগাদ করতে এক সপ্তাহ সময় দেয় প্রশাসন। এ সময়সীমা শেষ হচ্ছে আগামী শনিবার। আর এ জন্য বৃহস্পতিবার শেষ কর্মদিবসে প্রচ- ভিড় ছিল বিআরটিএ অফিসে।

খুলনা সার্কেলে গত এক সপ্তাহে ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য শিক্ষানবিস ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন জমা পড়েছে ১৬৯০টি। যা বর্তমান আইন পাস হওয়ার আগে গড়ে সপ্তাহে ছিল ৪৫৬টি। বিশেষ করে মোটর সাইকেল চালকদের ভিড় ছিল লক্ষ্যণীয়।

এতকিছুর পরও অজানা আতঙ্ক আর ভয়ে রয়েছেন সাধারণ জনগণ। কারণ আগে যেখানে ২০০ টাকা জরিমানা ছিল, সেখানে এখন ১০ হাজার টাকা জরিমানা।

অপরদিকে সড়ক থেকে লাইসেন্স ও ফিটনেস নেই জরিমানার ভয়ে গাড়ি বের করেননি অনেকে। কাগজপত্র পরীক্ষা করলে বিপুল পরিমাণ অর্থ জরিমানা দিতে হবে এ ভয়ে বৃহস্পতিবার অনেকে গাড়ি বের করেননি। নগরীর ও আন্তঃজেলার সড়ক থেকে অধিকাংশ ফিটনেসহীন গাড়ি উধাও হয়ে যায়। কেবল যেসব গাড়ির ফিটনেস ও চালকের লাইসেন্স এবং অন্যান্য কাগজপত্র ঠিক আছে সেসব গাড়িই সড়কে চলতে দেখা গেছে।

পুলিশ কাগজপত্র পরীক্ষা করলে আইনের আওতায় বিপুল পরিমাণ অর্থ জরিমানা দিতে হবে এমন ভয় থেকে তারা গাড়ি বের করেনি।

খুলনার বাস মালিক আরমান মিয়া জানান, ফিটনেস ও মেয়াদ উত্তীর্ণ কাগজপত্রের বেলায় ২৫ হাজার টাকা জরিমানার কথা বলা হয়েছে নতুন আইনে। এ সব কাগজপত্র ঠিক করতে বিআরটিএতে গাড়ি প্রদর্শন ও দাপ্তরিক কাজ- ব্যাংকে টাকা পরিশোধ করা সব মিলিয়ে ১০/১২ দিন সময় লেগে যায়। এ সময়ের মধ্যে মামলা দেয়া হয়। কাগজপত্র হালনাগাদ করতে ন্যূনতম একমাস সময় দেয়া হলে গাড়ির মালিকরা কাগজপত্র হালনাগাদ করতে যেমন সময় পাবেন তেমনি সরকারও প্রচুর রাজস্ব পাবে।

মংলা বন্দর এবং খুলনা বিভাগীয় শহরে দেশের বিভিন্ন এলাকার হাজারের অধিক যানবাহন আসা যাওয়া করে। অথচ কোথাও গাড়ি পার্কিংয়ের সুনির্দিষ্ট স্থান নেই। চালকরা বাধ্য হয়ে সড়কের পাশে গাড়ি পার্কিং করে থাকে। অথচ অবৈধ পার্কিংয়ের কথা বলে যত্রতত্র মামলা দেয়া হচ্ছে। এ ধরনের বেশ কিছু বিষয়ে নতুন সড়ক আইনে জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। অবকাঠামো তৈরির আগে আইন করার কারণে যানবাহন মালিকরা হয়রানির শিকার হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ