ঢাকা, শনিবার 9 November 2019, ২৫ কার্তিক ১৪২৬, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

আওয়ামী লীগ এখন সশস্ত্র বাহিনী-আমলা-পুলিশ আদালতের উপর দাঁড়িয়ে আছে -বদরুদ্দীন উমর

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল সভাপতি বদরুদ্দীন উমর বলেন, আওয়ামী লীগের আজ আর কোন রাজনৈতিক দল নেই। এই দল এখন সশস্ত্র বাহিনী-আমলা-পুলিশ-আদালতের উপর দাঁড়িয়ে আছে। নিস্ক্রিয় জনগণের উপরও আওয়ামী লীগ দাঁড়িয়ে আছে। এসব কারণেই ফ্যাসিবাদী শাসন চেপে আছে। আমাদের ১৯৭১ সালের কাছে ফিরে যেতে হবে। আওয়ামী লীগের শ্রেণী চরিত্র বুঝতে হবে। আওয়ামী লীগ কার প্রতিনিধিত্ব করতো? সমস্ত মধ্যস্বত্বভোগীদের সংগঠন, ফড়িয়াদের সংগঠন ছিল আওয়ামী লীগ। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ শেষে এই আওয়ামী লীগের লোকেরা রাষ্ট্র ক্ষমতা হাতে পেয়ে সম্পত্তি দখলে নিল। লাইসেন্স পারমিট চোরাচালান মজুতদারির মাধ্যমে দেশে এক লুন্ঠনজীবী শ্রেণি গড়ে উঠলো। এই ফ্যাসিবাদী আওয়ামী লীগকে প্রতিরোধে ডাক দেয়ার সংগঠন গড়ে তুলতে হবে আমাদের।
গতকাল শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে অনুষ্ঠিত জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের ১৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এইসব কথা বলেন। জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল সভাপতি বদরুদ্দীন উমরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন-জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল সম্পাদক ফয়জুল হাকিম, বাঙলাদেশ লেখক শিবিরের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইকবাল, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সম্পাদক সুনয়ন চাকমা, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি পারভেজ লেলিন প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন মুক্তি কাউন্সিল নারী সেল আহ্বায়ক মৌসুমী বিশ্বাস।
বদরুদ্দীন উমর বলেন, ৫০’র দশক ৬০’র দশক ছিল সংগ্রামের এক উজ্জ্বল দশক। কিন্তু ৭০ দশক ছিলো অন্ধকারময়। জনগণকে প্রশ্ন তুলতে হবে ছাত্রলীগ যে আজ অপরাধী সংগঠনে পরিণত হয়েছে এর জন্য কে দায়ী?
বদরুদ্দীন উমর বলেন, প্রতিরোধে ডাক দেয়ার সংগঠন গড়ে তুলতে হবে। মানুষকে চিন্তা করতে শেখাতে হবে। সারাদেশে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ আছে কিন্তু শেখ হাসিনার দুঃশাসনের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলছে না। ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে গড়ে তুলতে হবে সাংস্কৃতিক আন্দোলন। পচাগলা সরকারকে ধাক্কা দিতে তৈরী হতে হবে।
জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল সম্পাদক ফয়জুল হাকিম বলেন, জনগণের হাতে ক্ষমতা আনতে, জনগণের সরকার-সংবিধান-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে জাতীয় ভিত্তিতে সংগ্রাম গড়ে তুলতে হবে। ফ্যাসিবাদী শাসন উচ্ছেদে সংগ্রামের করণীয় হবে শ্রমিক কৃষক নিপীড়িত জাতিসত্তার জনগণের সংগঠনকে ন্যূনতম কর্মসূচিতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার। দেশের রাজনীতিতে ভারতীয় আধিপত্যকে উচ্ছেদ করা।
তিনি বলেন, গুম বন্দুকযুদ্ধে হত্যা মিথ্যা মামলা-হয়রানির মধ্য দিয়ে সরকার দেশে এক চরম আতঙ্ক ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করে ফ্যাসিবাদী শাসন দীর্ঘায়িত করার চক্রান্ত চালাচ্ছে। একে রুখে দাঁড়াতে হবে।
সুনয়ন চাকমা পার্বত্য চট্টগ্রামে জাতিসত্তার জনগণের রাজনৈতিক তৎপরতার উপর সরকারের দমন-পীড়ন-নির্যাতনের সমালোচনা করে বলেন, পাহাড় ও সমতলের বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তুলে একে মোকাবেলা করতে হবে।
পারভেজ লেলিন বলেন, শিক্ষাঙ্গনে শেখ হাসিনার সরকার ছাত্রলীগের মাধ্যমে সন্ত্রাস সৃষ্টি করে ছাত্রদের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের উপর হামলা চালাচ্ছে। শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে ফ্যাসিবাদী শাসন দীর্ঘায়িত করে চলেছে। একে ঐক্যবদ্ধ রুখে দাঁড়াতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ