ঢাকা, শনিবার 9 November 2019, ২৫ কার্তিক ১৪২৬, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

অতঙ্কে সাতক্ষীরার কয়েক লাখ মানুষ

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা : ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের অতঙ্কে উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরার কয়েক লক্ষ ছিন্নমূল মানুষ। নড়বড়ে বাঁধের কারণে শ্যামনগরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল প্লাবনের আশঙ্কা করা হচ্ছে। আইলা ও সিডরের মত বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে এমন আশঙ্কায়  ঘূর্ণিঝড় বুলবুল  মোকাবেলায় সাতক্ষীরায় সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণের কথা জানিয়েছে জেলা প্রশাসক মোস্তফা কামাপল।
গতকাল শুক্রুবার সন্ধায় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে  জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরী প্রস্তুতিূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় জানানো হয়, উপকূলীয় উপজেলা গুলিতে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে স্ব স্ব এলাকায় মাইকিং করে জনগনকে নিরাপদে থাকতে বলা হয়েছে। এছাড়া সুন্দরবন সংলগ্ন নদীখালে থাকা নৌযানগুলিকে উপকূলে নিরাপদ স্থানে থাকার আহবান জানানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, এরই মধ্যে ২৭০ টি আশ্রয় শিবির প্রস্তু রাখা হয়েছে। ১২৫২ টি স্কুল কলেজ মাদ্রাসা ফাঁকা করে রাখা হয়েছে। শ্যামনগর ,আশাশুনি ও কালিগঞ্জ উপজেলার প্রত্যন্ত এলকার জনগনকে শনিবার বেলা ১১ টার মধ্যে এসব আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে আনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দুর্যোগ কবলিতদের সহায়তায় ১১০ মেট্রিক টন চাল, নগদ ১ লাখ টাকা, ৮’শ প্যাকেট শুকনো খাবার, ২৭ হাজার পানি বিশুদ্ধকরন ট্যাবলেট, পানীয় জল, ওষুধপত্র মজুদ রাখা হয়েছে। ২২ হাজার স্বেচ্ছাসেবক ও রেডক্রিসেন্ট বাহিনী, ৮৫ টি মেডিকেল টিম, নৌ ও স্থলযান প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

একইভাবে পুলিশ, বনবিভাগ,কোস্টগার্ড, র‌্যাব ও বিজিবির পক্ষ থেকেও উপকূলীয় এলাকায় বুলবুল মোকাবেলায় আগাম ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক আরো জানান, সরকারি কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল ঘোষনা করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত তাদের কর্মস্থল ত্যাগ করতে নিষেধ করা হয়েছে।

অপরদিকে, সুন্দরবনের দুবলার চরে রাসমেলায় অংশগ্রহনেচ্ছু পুণ্যার্থীরা সম্ভাব্য দুর্যোগের কারনে যাত্রা বন্ধ করেছেন। এর আগে জেলা প্রশাসন থেকে তাদের সতর্ক করে দেওয়া হয়। এর আগে দুপুরে উপকূলীয় সব উপজেলায় নির্বাহী অফিসারগন সভা করেছেন।
এদিকে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এর প্রভাবে সাতক্ষীরায় শুক্রবার ভোর থেকে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি শুরু হয়। জেলায় ৭ নম্বর সতর্কবার্তা জারি রা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ