ঢাকা, রোববার 8 December 2019, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১০ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

মিষ্টির দোকানের প্রতারণা: খালি প্যাকেটের ওজনই ৩০০ গ্রাম!

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলা ইদবারদী বাসস্ট্যান্ডের নয়ন স্টোর নামে একটি দোকান থেকে ২০০ টাকায় ১ কেজি মিষ্টি কিনেছিলেন শহীদুল ইসলাম শামীম। তাকে যে প্যাকেটে মিষ্টি দেওয়া হয়েছিল সেটির ওজন একটু বেশি মনে হয় তার। তিনি প্যাকেটটি বাদ দিয়ে শুধু মিষ্টি মেপে দেখেন এক কেজিতে প্রায় আড়াইশ’ গ্রাম কম। সে হিসেবে মিষ্টির বাক্সটির দাম পড়েছে ৫০ টাকা। বিষয়টি নিয়ে দোকানির সঙ্গে তার তর্ক হলেও কোনো সমাধান পাননি।

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলা ইদবারদী বাসস্ট্যান্ডের নয়ন স্টোর নামে একটি দোকান থেকে ২০০ টাকায় ১ কেজি মিষ্টি কিনেছিলেন শহীদুল ইসলাম শামীম। তাকে যে প্যাকেটে মিষ্টি দেওয়া হয়েছিল সেটির ওজন একটু বেশি মনে হয় তার। তিনি প্যাকেটটি বাদ দিয়ে শুধু মিষ্টি মেপে দেখেন এক কেজিতে প্রায় আড়াইশ’ গ্রাম কম। সে হিসেবে মিষ্টির বাক্সটির দাম পড়েছে ৫০ টাকা। বিষয়টি নিয়ে দোকানির সঙ্গে তার তর্ক হলেও কোনো সমাধান পাননি।

একইভাবে প্রতারণার শিকার হয়েছেন মারুয়াদী এলাকার বাসিন্দা মনির হোসেন। তিনি বলেন, বাজার থেকে সাধারণ মানের ১ কেজি মিষ্টি কিনলে ১৬ থেকে ১৮টি মিষ্টি পাওয়া যায়। তবে ইদবারদী বাসস্ট্যান্ডের ইসরাফিল সুইটমিট থেকে ১ কেজি মিষ্টি কিনে বাড়িতে গিয়ে দেখি ১২টি মিষ্টি রয়েছে। সন্দেহবশত মিষ্টির প্যাকেট হাতে নিয়ে দেখি সেটির ওজন ৩০০ গ্রামের ওপরে।

এ দৃশ্য শুধু ইদবারদী বাসস্ট্যান্ডে নয় গোটা আড়াইহাজারের অধিকাংশ মিস্টির দোকানে এভাবে প্যাকেটের ওজনে ঠকছেন ক্রেতারা। বিক্রেতারা বিভিন্ন পণ্য দিতে গিয়ে যে প্যাকেট সরবরাহ করছেন সেটাও সেই পণ্যের দামেই বিক্রি করছেন। ভোক্তাদের ঠকাতে ব্যবসায়ীরা নিজেরাই অর্ডার দিয়ে এই বেশি ওজনের প্যাকেট বানিয়ে নিচ্ছেন।

ব্রাহ্মন্দী এলাকার একটি প্যাকেট তৈরি প্রতিষ্ঠানের কয়েকজন শ্রমিক জানান, ২৫০ গ্রাম আকারের মিষ্টির প্যাকেটের ওজন ৪০ থেকে ৫০ গ্রাম, ৫০০ গ্রাম আকারের প্যাকেটের ওজন ৭০ থেকে ৮০ গ্রাম, এক কেজি আকারের ওজন ২০০ গ্রাম থেকে ২৪০ গ্রাম এবং দুই কেজি আকারের প্যাকেটের ওজন ২৫০ থেকে ৩০০ গ্রাম। মিস্টির দোকান মালিকের কাছে এই প্যাকেট বিক্রি করা হয় প্রতিটি সর্বোচ্চ আট টাকায়। প্যাকেট তৈরি প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে গোপন চুক্তির মাধ্যমে প্যাকেটগুলো বানিয়ে নেন প্রতারক ব্যবসায়ীরা।

ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান: প্যাকেটের বাড়তি ওজনের কারণে প্রতিদিনই ঠকছেন ক্রেতারা। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত নরসিংদীর মদনগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের আড়াইহাজার উপজেলার ইদবারদী বাসস্ট্যান্ডে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে তিনটি দোকানের প্যাকেট পরীক্ষা করে দেখা যায়, খালি প্যাকেটেরই ওজন প্রায় ২৫০ থেকে ৩০০ গ্রাম।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. উজ্জল হোসেন জানান, নয়ন স্টোর, ইসরাফিল সুইটমিট ও মনির সুইটমিটে মিষ্টি দেওয়ার জন্য রাখা খালি প্যাকেটের ওজন করা হয়। ওজন পরিমাপের সময় দেখা যায়, একটি খালি প্যাকেট ২৫০ থেকে ৩০০ গ্রাম। এই প্যাকেটে মিষ্টি নেওয়ার অর্থ, এক কেজি মিষ্টি কিনে ক্রেতা পাবেন ৭৫০ গ্রাম। আইন অনুসারে, তিন মিষ্টির দোকান মালিককে পাঁচ হাজার টাকা করে ১৫ হাজার টাকা জরিমানাসহ মুচলেকা আদায় করা হয়েছে। আর দোকানে থাকা খালি প্রায় এক হাজার অতিরিক্ত ওজনের প্যাকেট পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ