ঢাকা, বৃহস্পতিবার 28 November 2019, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৩০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

শিক্ষক-গবেষকবৃন্দ তাঁদের সৃষ্টির মাঝে যুগ যুগ ধরে বেঁচে থাকেন

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভিসি প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার বলেছেন, মানবকল্যাণে যে জ্ঞান কাজে লাগেনা তা কখনোই প্রকৃত জ্ঞান হতে পারে না। সকল অন্ধকার-কুসংস্কার দূরীভূত করে মানবতার মুক্তির জন্য ব্যয়িত জ্ঞানই প্রকৃত জ্ঞান। আর যারা সততা ও নিষ্ঠার সাথে এই কাজে নিয়োজিত থাকেন তাঁদের বিদায় বলে কিছু নেই। তাঁরা যুগ যুগ ধরে বেঁচে থাকেন বিশ্ববাসীর হৃদয়ে। ২৭ নবেম্বর ২০১৯ বেলা ১১.৩০ টায় চবি এ কে খান আইন অনুষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি উদ্যোগে বিদায়ী ও নবাগত শিক্ষকদের সম্মাননা-সংবর্ধনা ২০১৯ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এসব কথা কলেন। চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর মো. জাকির হোসেন -এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. অঞ্জন কুমার চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিদায়ী শিক্ষকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চবি উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. এম আবদুল গফুর, পদার্থবিদ্যা বিভাগের প্রফেসর ড. দেব প্রসাদ পাল, সমাজতত্ত্ব বিভাগের প্রফেসর মো. লিয়াকত আলী, গণিত বিভাগের প্রফেসর ড. গণেশ চন্দ্র রায় এবং রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. সিদ্দিক আহমদ চৌধুরী।
প্রধান অতিথি তাঁর ভাষণে নবাগত শিক্ষকদের শুভেচ্ছা ও বিদায়ী শিক্ষকদের আন্তরিক অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সম্মানিত শিক্ষক-গবেষকবৃন্দ তাঁদের শিক্ষা ও গবেষণা কর্মের মাধ্যমে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে জ্ঞান-গবেষণায় সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে চলেছেন। এই গবেষণা কর্ম একদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্ঞান ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করেছে; অন্যদিকে জাতিকে দিয়েছে সঠিক পথের দিশা। তাঁদের হাতেই নির্মিত হয়েছে দক্ষ ও আলোকিত মানবসম্পদ যা দেশ-জাতির উন্নয়ন-সমৃদ্ধির অন্যতম পূর্ব শর্ত। তিনি বলেন এ সকল মহান মানুষ কখনো বিদায়ী হন না। বরং জীবনের শেষদিন পর্যন্ত তাঁদের গবেষণা কর্ম অব্যাহত রেখে মানব কল্যাণে নিজেদের নিয়োজিত রাখেন। ভিসি বিদায়ী শিক্ষকদের সুস্বাস্থ্য, দীর্ঘায়ু এবং মঙ্গল কামনা করে তাঁদের হাতে ফুল, উত্তরীয়, স্মারক ও সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব সুলতানা সুকন্যা বাশার। অনুষ্ঠানে নবাগত শিক্ষকদের পক্ষে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দর্শন বিভাগের প্রভাষক জনাব নাসরিন আক্তার এবং রসায়ন বিভাগের প্রভাষক জনাব মো. আরিফুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে চবি শিক্ষক সমিতির সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬০ জন নবাগত শিক্ষকবৃন্দকে বরণ করে নেয়া হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ