ঢাকা, বুধবার 4 December 2019, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৬ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

শিগগিরই এস ৪০০-এর দ্বিতীয় চালান নেওয়ার ঘোষণা তুরস্কের

৩ ডিসেম্বর, রয়টার্স : রাশিয়ার কাছ থেকে শিগগিরই এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার দ্বিতীয় চালান নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে তুরস্ক। বিষয়টি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অব্যাহত চাপ উপেক্ষা করেই এ ঘোষণা দিলো আঙ্কারা। সোমবার রাশিয়ার সরকারি সংবাদমাধ্যম আরআইএ-এর বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এস-৪০০ কেনার পরিকল্পনা স্থগিত না করলে ওয়াশিংটন তুরস্কের বিরুদ্ধে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দেওয়ার পরও আঙ্কারার পক্ষ থেকে এমন প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে। তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ানের একজন শীর্ষস্থানীয় নিরাপত্তা ও পররাষ্ট্র বিষয়ক কর্মকর্তা বলেছেন, কারিগরি কারণে এস ৪০০-এর দ্বিতীয় দফা চালান আনার বিষয়টি বন্ধ রয়েছে। আমার মনে হয় অচিরেই ওই চালান আসা শুরু করবে।

গত নভেম্বরে রাশিয়ার রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত সমরাস্ত্র নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের প্রধান বলেছিলেন, এর আগে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী তুরস্ককে এস-৪০০ ব্যবস্থার বাকি অংশ সরবরাহের কাজ ২০২০ সালের প্রথমার্ধে সম্পন্ন হবে।

মার্কিন হুমকি উপেক্ষা করে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে রাশিয়ার কাছ থেকে এই আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার চূড়ান্ত চুক্তি স্বাক্ষর করে আঙ্কারা। গত জুলাই মাসে এই ব্যবস্থার প্রথম দফা চালান হাতে পায় তুরস্ক। রাশিয়া ৩০টি বিমানে করে এ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলো আঙ্কারার কাছে হস্তান্তর করে। ২০২০ সালের এপ্রিল নাগাদ এই ব্যবস্থা তুরস্কে মোতায়েনের উপযোগী করে তোলা সম্ভব বলে জানিয়েছে তুর্কি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

নিষেধাজ্ঞা আরোপের দাবি মার্কিন সিনেটরদের : রাশিয়া থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা কেনায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে তুরস্কের বিরুদ্ধে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির দুই প্রভাবশালী সিনেটর। মার্কিন কংগ্রেসের রিপাবলিকানদলীয় সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম ও ডেমোক্র্যাট দলের সিনেটর ক্রিস ভ্যান হোলেন তুরস্কের ওপর নিষেধাজ্ঞা আনতে ট্রাম্পকে আহ্বান জানিয়েছেন।

মার্কিন সিনেটররা বলছেন, তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে ব্যর্থ হলে তা অন্য দেশগুলোর কাছে ভয়াবহ বার্তা দেবে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর কাছে লেখা এক চিঠিতে তারা বলেছেন, ধৈর্যের সময় অনেক আগেই পার হয়ে গেছে। এখন আইনি পদক্ষেপ নিতে হবে। দুই সিনেটের আরও বলেছেন, তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা না হলে অন্যরা এ ধারণা করবে– যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধিতা করা কোনো বিষয়ই নয়।

তুরস্ক বলছে, কারিগরি কারণে এস-৪০০’র দ্বিতীয় দফা চালান আনার বিষয়টি বন্ধ রয়েছে। আমার মনে হয় অচিরেই ওই চালান আসা শুরু করবে।

গত মাসে রাশিয়ার রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত সমরাস্ত্র নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের প্রধান বলেছিলেন, এর আগে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী তুরস্ককে এস-৪০০ ব্যবস্থার বাকি অংশ সরবরাহের কাজ আগামী বছরের প্রথমার্ধে সম্পন্ন হবে।

আমেরিকার রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে রাশিয়ার কাছ থেকে এই আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা কেনার চূড়ান্ত চুক্তি সই করে আঙ্কারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ