ঢাকা, বুধবার 15 February 2012, ৩ ফাল্গুন ১৪১৮, ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৩
Online Edition

শেখ জামালকে রুখে দিলো ফেনী সকার

স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের তৃতীয় রাউন্ডে শেখ জামালকে রুখে দিয়েছে ফেনী সকার ক্লাব। গতকাল মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়েছে। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জামালের কাছ থেকে পিছিয়ে পড়েও এক পয়েন্ট আদায় করে নিয়েছে ফেনীর ক্লাবটি। জাতীয় দলের একঝাঁক তারকা ফুটবলারের সমন্বয়ে গড়া দলটি ম্যাচের শুরু থেকেই গোলের চেষ্টায় সকারের রক্ষণভাগে আক্রমণ শানাতে থাকে। তাদের মুহুর্মুহু আক্রমণে ম্যাচের মাত্র আট মিনিটেই এগিয়ে যায় ধানমন্ডির ক্লাবটি। দলের আক্রমণভাগের আফ্রিকান ফুটবলার কেস্টার গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। ডানপ্রান্ত দিয়ে নাইজেরিয়ান মিডফিল্ডার ফেমি অরুনিমির নেয়া কর্নার শট সকারের বক্সে আসে। জটলায় দাঁড়ানো স্বদেশী ফুটবলার কেস্টার হেডে বল জালে পাঠালে ১-০ গোলে এগিয়ে যায় শেখ জামাল। ম্যাচে সমতা ফিরিয়ে আনতে সকারের ফুটবলাররা আক্রমণাত্মক কৌশল নিয়ে খেলতে শুরু করলে শেখ জামালের খেলায় কিছুটা পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। প্রথমার্ধে একাধিকবার গোলের সুযোগ সৃষ্টি করলেও আক্রমণভাগের অদক্ষতায় গোলের  স্বাদ পায়নি সকার। বিরতির পর থেকে উভয় দলই গোলের চেষ্টায় আক্রমণাত্মক  কৌশল নিলে ম্যাচটি প্রাণবন্ত হয়ে উঠে। আরো এগিয়ে যাবার সহজ সুযোগ নষ্ট করে শেখ জামাল ম্যাচের ৭২ মিনিটের সময়।  আত্মঘাতী গোল খাওয়া থেকে এক্ষেত্রে রক্ষা পায় ফেনী সকার। শেখ জামাল ডিফেন্ডার রায়হানের লম্বা থ্রো মওদুদ আহমেদ ক্লিয়ার করার চেষ্টায় ব্যাক হেড করেন। কিন্তু বলের গতি পরিবর্তন হয়ে নিজেদের পোস্টে লেগে ফিরে আসলে রক্ষা পায় সকার ক্লাব। মাত্র পাঁচ মিনিট পার্থক্যে ম্যাচে সমতায় আসে সকার ক্লাব। সংঘবদ্ধ আক্রমণে বদলি মিডফিল্ডার ইকবাল হোসেনের গোলে সমতায় আসে সকার ক্লাব। বামপ্রান্ত থেকে আকরামুজ্জামান লিটনের ফ্রি-কিক জামালের বক্সের জটলায় আসে।  নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড রোল্যান্ড হেডে বল নামালে তা পেয়ে যান ইকবাল। আগুয়ান গোলরক্ষক আমিনুক হক বলের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার চেষ্টায় ব্যর্থ হলে আলতো শটে বল জালে ঠেলে দেন ইকবাল ১-১।  ম্যাচের অবশিষ্ট সময় কয়েকটি আক্রমণ শানিয়ে শেখ জামালকে চাপে রাখলেও আর গোল আদায় করতে পারেনি সকার। শেষ পর্যন্ত সমতা নিয়েই মাঠ ছাড়ে দু'দল। ম্যাচ শেষে সকারের কোচ রেজাউল হক জামাল বলেন, আমাদের লক্ষ্য ছিলো পূর্ণ পয়েন্ট অর্জন। জয়ের জন্যই আমরা খেলেছি। তবে দক্ষ স্ট্রাইকারের অভাবে লক্ষ্যে পৌঁচ্ছা সম্ভব হয়নি। দলের পারফরমেন্সে তিনি সন্তুষ্ট বলে জানালেন। মাঝমাঠে আমরা প্রতিপক্ষের চেয়ে এগিয়ে ছিলাম এবং খেলোয়াড়দের মধ্যে বোঝাপড়াও ভালো ছিলো তাই পয়েন্টের দেখা পেয়েছি। অপরদিকে  শেখ জামাল ধানমন্ডির কোচ সাইফুল বারী টিটু দলের পারফরমেন্সে হতাশা ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, প্রতিপক্ষ ডিফেন্সিভ খেলায় আমরা আক্রমণাত্মক কৌশলেই খেলেছি। বিদেশি ডিফেন্ডার ইসা না থাকায় আমাদের রক্ষনভাগে কিছুটা ঘাটতি ছিলো। এছাড়া মাঝমাঠেও প্রতিপক্ষ ভালো খেলেছে বলে জানান। লিগের  তিন ম্যাচ শেষে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব চার পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে। অপরদিকে  সমান ম্যাচ খেলে ফেনী সকার দুই পয়েন্ট পেয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ