ঢাকা, বুধবার 15 February 2012, ৩ ফাল্গুন ১৪১৮, ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৩
Online Edition

যোগাযোগ সচিব ও সওজ'র প্রধান প্রকৌশলীসহ তিনজনকে হাইকোর্টে তলব

স্টাফ রিপোর্টার : সরকারের যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের তিন কর্মকর্তাকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামীকাল বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে হাজির হতে বলা হয়েছেন। ওইদিন তাদের বিরুদ্ধে কেন আদালত অবমাননার অভিযোগে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে না-তার কারণ  ব্যাখ্যা করতে হবে। তলব করা তিনজন হলেন-যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সচিব এম এ এন সিদ্দিকী, সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মো. আমানুর রশিদ লস্কর ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (প্রশাসন ও সংস্থাপন) মো. ফরিদুল আলম।

গতকাল মঙ্গলবার বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

গত বছরের ১০ মার্চ হাইকোর্ট শিশু একাডেমী ও সড়ক ভবনের অধীনে থাকা সুপ্রিমকোর্টের সম্পত্তি ৯০ দিনের মধ্যে ফিরিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেয়। হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরপিবি) রিট আবেদন করলে হাইকোর্ট ওই রায় দেন।

এই আদেশের বিরুদ্ধে শিশু একাডেমী এবং সড়ক ও জনপথ (সওজ) আপিল দায়ের করে। আপিলের ওপর শুনানি শেষে একই বছরের ২৮ জুলাই প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের সাত বিচারপতির বেঞ্চ তা খারিজ করে দেন।

এরপর গত সোমবার সওজ পুরো জমি বুঝিয়ে না দিয়ে অংশ বিশেষ বুঝিয়ে দিতে সুপ্রিমকোর্টকে চিঠি দেয়। সওজের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. ফরিদুল আলম স্বাক্ষরিত এই চিঠি সুপ্রিমকোর্টের রেজিস্ট্রারের দফতরে পৌঁছে।

এরপর বিকালে সুপ্রিমকোর্টের জমিতে দেয়াল তৈরির কাজ শুরু করলেও শেষ পর্যন্ত সুপ্রিমকোর্টের রেজিস্ট্রার একেএম শামসুল ইসলামসহ কর্মকর্তাদের আপত্তির মুখে এবং যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নির্দেশে দেয়াল ভেঙ্গে ফেলেছে সড়ক ও জনপথ অধিদফতর সওজ।

এর প্রেক্ষিতে সুপ্রিমকোর্টের রায় বাস্তবায়ন না করে বাধা সৃষ্টির অভিযোগে এইচআরপিবির সেক্রেটারি এডভোকেট আসাদুজ্জামান সিদ্দিকী আদালত অবমাননার অভিযোগে আবেদন দাখিল করেন। এই আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আদালত যোগাযোগ সচিবসহ তিনজনকে হাজির হওয়ার আদেশ দেন।

আদালত অবমাননার অভিযোগের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন এডভোকেট মনজিল মোরসেদ। সরকার পক্ষে ছিলেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল এবিএম আলতাফ হোসেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ