ঢাকা, বুধবার 15 February 2012, ৩ ফাল্গুন ১৪১৮, ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৩
Online Edition

দ্রুত বিচার আইনের মেয়াদ আরো দু'বছর বাড়াতে সংসদে বিল

সংসদ রিপোর্টার : চাঁদাবাজি, যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি, যানবাহনের ক্ষতিসাধন, ছিনতাই, দস্যুতা, ত্রাস ও অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি, দরপত্র ক্রয়-বিক্রয় গ্রহণে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির  জন্য দ্রুত বিচার আইনের মেয়াদ আরো দু'বছর বাড়াতে গতকাল সংসদ বিল উত্থাপন করা হয়েছে। শাস্তির মেয়াদ বাড়ানো ছাড়াও বেশ কিছু বিষয়ে সংশোধনীর বিধান রেখে গতকাল মঙ্গলবার আইনশৃংখলা বিঘ্নকারী অপরাধ দ্রুত বিচার সংশোধন বিল ২০১২ সংসদে উত্থাপন করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এডভোকেট সাহারা খাতুন বিলটি উত্থাপন করলে স্পিকার সেটি অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চূড়ান্ত রিপোর্ট আকারে ২ সপ্তাহের মধ্যে উপস্থাপনের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে প্রেরণ করেন।

বিলটির উদ্দেশ্য ও কারণ সম্বলিত বিবৃতিতে এডভোকেট সাহারা খাতুন বলেছেন, চাঁদাবাজি, যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি, যানবাহনের ক্ষতিসাধন, স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বিনষ্ট করা, ছিনতাই, দস্যুতা, অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি, ভয়ভীতি প্রদর্শন ইত্যাদি ধরনের গুরুতর অপরাধের দ্রুত বিচার নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে আইনশৃংখলা পরিস্থিতির অধিকতর উন্নতির লক্ষ্যে ২০০২ সালে ২ বছরের মেয়াদে ‘আইনশৃংখলা বিঘ্নকারী অপরাধ দ্রুত বিচার আইন পাস করা হয়। বিভিন্ন সময় আইনটির কিছু সংশোধনীসহ ২ বছর করে মেয়াদ বাড়ানো হয়। সর্বশেষ ২০১০ সালে আইনটির মেয়াদ আরো ২ বছর বাড়ানো হয় যা এ বছর শেষ হবে। কিন্তু এই আইনে বর্তমানে ২ হাজার ২৬৯টি মামলার নিত্তির জন্য আইনটির মেয়াদ আরো ২ বছর বাড়ানো এবং এ সংক্রান্ত শাস্তির পরিমাণ ১০ বছরের কারাদন্ড থেকে বাড়িয়ে ১২ বছর করে আইনটির সংশোধনীসহ বিল আকারে সংসদে উপস্থাপন করা হল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ