ঢাকা, বুধবার 26 September 2018, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ১৫ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition
  •  মত-অভিমত

    বাংলা নববর্ষ

    বাংলা নববর্ষ ইংরেজি Bangla New Year  অথবা বর্তমানে ইংরেজিতেই Bangla Nobaborsho লিখা হয়ে থাকে। বাংলা নববর্ষের প্রথম দিন পহেলা বৈশাখ। বাঙ্গালিত্বের চেতনার তীব্র চাপে ১৯৬৪ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রাদেশিক সরকার বাংলা নববর্ষের ছুটি ঘোষণা করেন। সেই থেকে দিনটি জাতীয়ভাবে পালিত হয় এবং তা সকল বাঙ্গালির জাতীয় দিবসে পরিণত হয়। বর্তমানে বাংলাদেশে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নববর্ষ উৎসব ভাতা হিসেবে মূল বেতনের শতকরা ২০% প্রদান ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • পহেলা বৈশাখ: সংস্কৃতির নামে অপ-সংস্কৃতির দোলা

    আসাদুজ্জামান অাসাদ : উন্নত জীবন, আচার-আচরণ, শ্রেষ্ঠতম কর্মকৌশল, বুদ্ধি জ্ঞান, মননশীল ও সৃজনশীলতা হিসাবে মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। মানুষ নিজস্ব চিন্তা, শক্তি দ্বারা সজ্জিত, নন্দিত, সমাদৃত। পরিশীলিত ভাবে নিজেকে উপস্থাপন  করে। যার কারনে মানুষকে বলা হয় সভ্য বা শ্রেষ্ঠ জীব। সু-সভ্য মানুষের জীবন ধারণ বিকশিত হয় সংস্কৃতির মাধ্যমে। সংস্কৃতি একমাত্র মানুষের মাঝে বিদ্যমান রয়েছে। তাই ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • নববর্ষের সময় নিয়ে যত কথা

    আজহার মাহমুদ : জাতির জন্য অসীম আনন্দ আর ভালোবাসার দিন হচ্ছে বাংলা নববর্ষ। বাঙ্গালীর সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যকে ঘিরে রয়েছে বাংলা নববর্ষ। বাঙ্গালীর জন্য নববর্ষ হলো পহেলা বৈশাখ। বৈশাখের প্রথমদিন বাংলা সনের নতুন বছর শুরু হয় যা বাঙ্গালীর জন্য নতুন বছর। তাই নতুন বছরের আনন্দ আর খুশী সকলের হৃদয়ে ভাসছে। কিন্তু বাঙ্গালীর এই আনন্দে বাধা হয়ে দাঁড়ায় “সময়”। প্রতি বছর বাংলার মানুষ এই দিনটির ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • নববর্ষের উৎসব যেন আর কলঙ্কিত না হতে পারে

    ডা. মো: মুহিব্বুল্লাহ : গণনাচক্রে আরবিতে যেমন মহররম মাস বছরের প্রথম মাস, ইংরেজিতে জানুয়ারী মাস, তেমনি বাংলা ১২ মাসের মধ্যে বৈশাখ মাসই বছরের প্রথম মাস। এমাসের প্রথম দিনই আমাদের কাছে বাংলা নববর্ষের মর্যাদা পেয়ে আসছে। নিজস্ব সংস্কৃতিতে আমরা এ দিনটিকে উপভোগের মাধ্যমে উৎজাপন করে থাকি। বাংলা নববর্ষ আগমনের বেশ আগের থেকেই আমরা পান্তা-ইলিশের আয়োজনে আনন্দে ব্যস্ততম সময় ও পার করতে ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • বিজাতীয় সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ কাম্য নয়

      মোহাম্মদ জাফর ইকবাল: ‘মুছে যাক সব গ্লানি, ঘুচে যাক জ্বরা,/অগ্নিস্নানে দেহে প্রাণে শুচি হোক ধরা।/ রসের আবেশরাশি শুষ্ক করি দাও আসি,/ আনো, আনো, আনো তব প্রলয়ের শাঁখ/ মায়ার কুজঝটি-জাল যাক দূরে যাক।’ বৈশাখকে এভাবেই ধরাতলে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। চৈত্রের রুদ্র দিনের পরিসমাপ্তি  প্রায় সন্নিকটে। বাঙালির জীবনের সবচেয়ে আনন্দের এবং মহিমান্বিত ক্ষণ বাংলা ... ...

    বিস্তারিত দেখুন

  • প্রথম পৃষ্ঠা
  • আগে
  • পরে
  • শেষ পৃষ্ঠা

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ