রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

এবার বন্ধ হলো দিগন্ত ও ইসলামিক টেলিভিশন

স্টাফ রিপোর্টার : সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এবার বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল দিগন্ত ও ইসলামিক টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ করে দিয়েছে বিটিআরসি।

সোমবার ভোরের দিকে হঠাৎ করেই পুরানা পল্টনের ১৬৬, সৈয়দ নজরুল ইসলাম সরণীর আল-রাজী কমপ্লেক্স দিগন্ত টেলিভিশনের অফিসে গিয়ে এর সম্পচার বন্ধ করে দেন বিটিআরসি’র কর্মকর্তা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। দিগন্ত টেলিভিশনের প্রধান বার্তা সম্পাদক জিয়াউল কবীর সুমন এ তথ্য জানান। তিনি জানান, রাত ৪টা ২৪ মিনিটের দিকে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী লোকজন এসে পিসিআর-এ (মাস্টার কন্ট্রোল রুমে) ঢুকে সুইচ বন্ধ করে দেয়। বন্ধ করে দেয়ার পর কিছু যন্ত্রপাতিও জব্দ করে নিয়ে যায়। তাদের সঙ্গে বিটিআরসি’র কর্মকর্তারাও ছিলেন।

তবে কী কারণে এর সম্প্রচার বন্ধ করে দেয়া হয়েছে তা তারা দিগন্ত কর্তৃপক্ষকে জানায়নি। তবে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর সূত্র বলছে, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই দিগন্ত টিভি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

তার আগে রাত ২টার দিকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ইসলামিক টিভির কার্যালয়ে গিয়ে সম্প্রচার বন্ধের নির্দেশ দিয়ে সম্প্রচার কক্ষে তালা লাগিয়ে দেন বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক শামস এস্কেন্দার। তিনি বলেন, রাত আড়াইটা থেকে তাদের সম্প্রচার বন্ধ রয়েছে। এ বিষয়ে কথা বলার জন্য যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও বিটিআরসির কোনো কর্মকর্তাকে পাওয়া যায়নি।

এ প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু সোমবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ ও দাঙ্গা লাগানোর মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি করায় টেলিভিশন দুটির সম্প্রচার সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এর আগে দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ছাপাখানায় তালা দিয়ে প্রকাশনা বন্ধ করে দেয়া হয়। বর্তমান সরকারের আমলেই বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল ওয়ান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

টিভি চ্যানেল বন্ধে এরশাদের নিন্দা: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, আক্রোশের বশবর্তী হয়ে কোনো মিডিয়া বন্ধ করা গণতান্ত্রিক দেশে কাম্য হতে পারে না। কোন চ্যানেল যদি আইন পরিপন্থী কোনো কাজ করে থাকেÑ তাহলে সে ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। তিনি দিগন্ত ও ইসলামী টেলিভিশন বন্ধ করা এবং পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে মিডিয়াকর্মীদের উপর হামলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

গতকাল এক বিবৃতিতে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ এই নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, তথ্য ও মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে স্তদ্ধ করার জন্য কোনো মিডিয়ার প্রচার বন্ধ করা গণতান্ত্রিক আচরণের পরিপন্থী। আশা করি, সরকার এ বিষয়টি বিবেচনায় রেখে দিগন্ত ও ইসলামী টিভিকে পুনরায় সম্প্রচারের সুযোগ প্রদান করবেন। এই দু’টি টিভি চ্যানেল যদি আইন পরিপন্থী কোনো কাজ করে থাকেÑ তাহলে সে ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। কিন্তু আক্রোশের বশবর্তী হয়ে কোনো মিডিয়া বন্ধ করা গণতান্ত্রিক দেশে কাম্য হতে পারে না। এরশাদ বলেন, রোববার হেফাজতে ইসলামের কর্মসূচি চলাকালে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সংবাদ কর্মীদের উপর যে হামলা চালানো হয়েছে তা খুবই ন্যক্কারজনক। তিনি ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং যারা এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের শনাক্ত করে শাস্তি প্রদানের দাবি জানান। সেই সাথে তিনি সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে তাদের নিরাপত্তা বিধানের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্যেও সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

ডিআরইউ’র উদ্বেগ: দিগন্ত ও ইসলামিক টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ এবং বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত ডিআরইউ সদস্যসহ সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ)।

সংগঠনের সভাপতি শাহেদ চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান গতকাল এক বিবৃতিতে বলেছেন, দিগন্ত ও ইসলামিক টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধের ফলে প্রতিষ্ঠান দু’টিতে কর্মরত ডিআরইউ সদস্যরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। ডিআরইউ সদস্যদের অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কথা বিবেচনায় রেখে নেতৃবৃন্দ প্রতিষ্ঠান দু’টির কর্মকা- চালুর বিষয়ে ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

বিবৃতিতে ডিআরইউ নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, রোববার হেফাজতে ইসলামের কর্মসূচি চলাকালে পেশাগত দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় আন্দোলনকারীদের হামলায় ডিআরইউ’র কল্যাণ সম্পাদক ও নতুন বার্তা ডটকম’র সিনিয়র রিপোর্টার নাজমুল আহম্মদ তৌফিক এবং ডিআরইউ’র সদস্য ও জিটিভির স্টাফ রিপোর্টার সাজ্জাদ হোসাইনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মীরা গুরুতর আহত হন। এছাড়া পুলিশের ছড়া গুলীর ¯িপ্রন্টারের আঘাতে ডিআরইউর সদস্য ও জনকণ্ঠের সিনিয়র রিপোর্টার ফিরোজ মান্নাসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিক আহত হয়েছেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সাংবাদিকদের ওপর এ ধরনের হামলা উদ্বেগজনক এবং নিন্দনীয়। তারা ঘটনার সঙ্গে জড়িত দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ