সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

চীন সবসময় বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু

স্টাফ রিপোর্টার : ভূ-রাজনীতিতে বাংলাদেশের সমর্থন চেয়েছেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং। বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে চীনা প্রেসিডেন্ট এ সমর্থন চান। গতকাল শুক্রবার পাঁচ তারকা হোটেল লা মেরিডিয়ানে তাদের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল সাড়ে ৫টায় বৈঠক শুরু হয়ে ৪০ মিনিট চলে ।

বৈঠকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, মাহবুবুর রহমান, বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান, সাবিহ উদ্দিন ও বিএনপির চেয়ারপার্সনের বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামছুর রহমান শিমুল বিশ্বাস।

 বৈঠক শেষে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, বৈঠকে দুই দেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। চীন আশা করে, ভূ-রাজনৈতিক ক্ষেত্রে চীনের ভূমিকাকে বাংলাদেশ সমর্থন করবে।

বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া বৈঠকে উল্লেখ করেছেন, চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সময় স্থাপিত হয়। এরপর থেকে দুই দেশের মধ্যে অভূতপূর্ব বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক অব্যাহত রয়েছে। চীন সব সময় বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। খালেদা জিয়া আশা করেন, বাংলাদেশে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কার্যক্রম, বিশেষ করে উন্নয়ন কাজে চীনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে এবং পাশে থাকবে। মির্জা ফখরুল বলেন, চীন আশা করে, ভূ-রাজনৈতিক ক্ষেত্রে চীন যে ভূমিকা পালন করছে, বিশেষ করে উন্নয়ন ক্ষেত্রে, বাংলাদেশ তাকে সমর্থন করবে।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিন পিং এর বাংলাদেশ সফরকে স্বাগত জানিয়ে বিবৃতি দেন বিএনপি চেয়ারপার্সন। বিবৃতিতে বলা হয়, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিন পিং-এর বাংলাদেশ সফরের জন্য তাকে স্বাগত জানাচ্ছে। বিএনপি এবং বাংলাদেশের জনগণ বিশ্বাস করে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের জনগণের সম্পর্ক ঐতিহাসিকভাবে অত্যন্ত নিবিড়। একইসঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ১৯৭৭ সালে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের উদ্যোগে বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হওয়ার পর বাংলাদেশের জনগণ চীনের অব্যাহত সহযোগিতার কথা স্মরণ করে। রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং এর এই সফর নিঃসন্দেহে চীন ও বাংলাদেশের সম্পর্ককে আরো গভীর করবে। 

১৯৮৬ সালে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সময়ে চীনের সাথে বাংলাদেশের কুটনৈতিক সম্পর্কের গোড়াপত্তন হয়। জিয়াউর রহমানের প্রতিষ্ঠিত দল বিএনপির প্রধান হিসেবে বেগম খালেদা জিয়া চীনা প্রেসিডেন্টের সাথে সাক্ষাৎ করে আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে স্বাগত জানান। এর আগে খালেদা জিয়ার সাথে শি জিনপিংয়ের একাধিকবার সাক্ষাৎ হয়েছিলো।

সর্বশেষ বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে বেগম জিয়া চীন সফরকালে সে দেশের ভাইস প্রেসিডেন্টসহ কমিউনিস্ট পার্টির নীতিনির্ধারকদের সাথেও বৈঠক করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ