শুক্রবার ১০ জুলাই ২০২০
Online Edition

রাসিকের সিদ্ধান্ত উল্টে দিলেন আ’লীগ নেতারা

রাজশাহী অফিস : রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের (রাসিক) সিদ্ধান্ত উল্টে দিলেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতারা। ফলে বন্ধের একদিন না যেতেই রাজশাহী নগরীতে ফের চালু হলো ব্যাটারিচালিত রিকশা।
নগরীর রাস্তায় যানজট আর অতিরিক্ত যানবাহন কমানোর জন্য নতুন বছরের শুরুতেই রাজশাহীতে ব্যাটরিচালিত অটোরিকশা চলাচল বন্ধ করে দেয় রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন। একদিন পার হতে না হতেই আবারো চালু করা হয়েছে ব্যটারিচালিত অটোরিকশার চলাচল। ফলে ফের নগরীতে যানজট বৃদ্ধি পেয়েছে। অথচ একদিন আগে ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কিছুটা হলেও স্বস্তি আসে নগরীর পথচলা মানুষদের। কিন্তু সোমবার সকালে অটোরিকশা পুনরায় চালুর দাবিতে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে জড়ো হয় বিক্ষুব্ধ ব্যাটারি চালকরা। এ সময় অটোরিকশা শ্রমিক এবং মালিকরা উপস্থিত ছিলেন। পরে নগর আওয়ামী লীগ-শ্রমিক-পুলিশের সাথে ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে পুনরায় চালু করা হয় অটোরিকশা। সঙ্গে সঙ্গেই নগরীতে বাড়তে থাকে যানজট। জানা যায়, গত ২৬ ডিসেম্বর রাস্তায় অটোরিকশা পুনরায় চলাচলের জন্য ১১ দফা দাবি নিয়ে রাসিক মেয়রের নিকট যায় জাতীয় রিকশা শ্রমিক লীগের সদস্যরা। এতে রিকশার গতিবেগ কম রাখা, যেখানে সেখানে অবৈধভাবে যানবাহন না রাখা, বৈধ কাগজ ছাড়া রাস্তায় কোন রিকশা না চলা, রাজশাহীতে কোন কর্মসংস্থানের সুযোগ নেই যার ফলে রিকশা বন্ধ হলে হাজারো শ্রমিক বেকার হয়ে পড়বে এমন কথা বলা হয়। কিন্তু রাসিক পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী নতুন বছরের প্রথম দিন সকল ব্যটারিচালিত অটোরিকশা বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়। পাড়ায় মহল্লায় মাইকিং করে রিকশা চালনায় নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। একদিন বন্ধ থাকার পর সোমবার বিক্ষুব্ধ মালিক-শ্রমিকরা জমায়েত হয় রাজশাহী মহানগর আ’লীগের কার্যালয়ের সামনে। পরে দুপুর ১২টার দিকে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন সেখানে উপস্থিত হয়ে জাতীয় রিকশা শ্রমিক লীগ এবং মালিক শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্যদের সাথে বৈঠক করেন। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী চলা বৈঠকের পর মালিক-শ্রমিক এবং নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সম্মতিক্রমে নতুন শর্ত দিয়ে পুনরায় অটোরিকশা চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ