মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০
Online Edition

বাগেরহাটে যুবককে নির্মম নির্যাতন

বাগেরহাট সংবাদাতা: বাগেরহাটের মংলা উপজেলার আমড়াতলা বাজার এলাকায় এক যুবককে নির্মম নির্যাতন চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। গুরুতর আহত ওই যুবক আব্দুল্লাহ (২২) এখন মংলা হাসপাতালে মৃত্যুর প্রহর গুনছে। নির্যাতনের মুল হোতা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী সাগরের ভয়ে অসহায় যুবক আব্দুল্লার পরিবার থানায় অভিযোগ করতে পারেনি। রবিবার দুপুরে মংলা হাসপাতালে সাংবাদিকদের দেখে আহত আব্দুল্লার বৃদ্ধা মাতা আকলিমা বেগম অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলেকে মংলা উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহেরের ভাইপো সন্ত্রাসী সাগর তার চিংড়ি ঘেরে নামমাত্র বেতনে কর্মচারী থাকতে বলে। এতে আব্দুল্লাহ রাজী না হওয়ায় সন্ত্রাসী সাগর ক্ষীপ্ত হয়ে মঙ্গলবার আমড়াতলা বাজার থেকে আবদুল্লাকে ধরে নিয়ে প্লাস দিয়ে চেপে হাত-পায়ের বিভিন্ন যায়গায় ক্ষতবিক্ষত করে। লোহার রড ও বাঁশ দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে অজ্ঞান করে মৃত ভেবে ফেলে রেখে যায়।
পরে স্থানীয়দের সহায়তায় আশংকাজনক অবস্থায় আব্দুল্লাকে মংলা হাসপাতালে ভর্তি করে। হাসপাতালের ডাক্তার মোঃ শাহীন বলেন, আব্দুল্লাহর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে জানতে সাগরের সাথে মোবাইল ফোনে (০১৭১৫-০৯১৬২৭) যোগাযোগের চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি। মংলা থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি মঞ্জুর এলাহী বলেন, ঘটনা শুনেছি।
ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করলে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া হবে। সাগর ও তার ২ ভাই প্রিন্স ও টিপু হাওলাদারের বিরুদ্ধে এলাকায় একাধিক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে।
মংলা উপজেলা চেয়াম্যান আবু তাহের হাওলাদার সাংবাদিকদের জানান, আহত আবদুল্লার মা বিষয়টি আমাকে জানিয়েছেন। মংলার সোনাইলতলা এলাকার একাধিক মৎস্য ব্যবসায়ী বলেন সুন্দরবনের দুর্ধর্ষ বনদস্যু রাজু বাহিনীর বিপুল অর্থ সম্পদ ভোগ করে ইলিয়াছ হালাদারের তিন ছেলে।
এমনকি মংলা শহরে রাজুর জমিতে ভবন বানিয়ে ভোগ দখল করছে। এসব অবৈধ সম্পদের মালিকানা পেয়ে তারা চরম বেপরোয়া হয়ে উঠেছে তারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ