সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

স্বাস্থ্যসেবা বিলে ব্যর্থ ট্রাম্প 

শেষ মুহূর্তে এসে ভোটাভুটি বাদ দিয়ে প্রত্যাহার করে নিতে হয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্বাস্থ্যসেবা বিল। এই বিল নিয়ে মার্কিন কংগ্রেসে রিপাবলিকানরাই বিভক্ত হয়ে পড়েছিল। ক্ষমতায় আসার পর প্রথম আইন প্রণয়ন করতে গিয়ে ট্রাম্প ব্যর্থ হলেন। বিবিসি।

এটি তার জন্য বড় ধাক্কা বলে বিশ্লেষকরা বলছেন। কারণ ওবামার সময়ের স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত বিল, যা ওবামাকে যার নামে পরিচিত, সেটি বাতিল করার বিষয়টি ছিল ট্রাম্পের অন্যতম প্রধান নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি। নিজের দলেই সমর্থন না পেয়ে ট্রাম্প তার প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যর্থ হলেন। ওবামার প্রণীত স্বাস্থ্যসেবা বিল বাতিল করা সম্ভব হল না। হাউজ স্পিকার পল রায়ান বলেছেন, ট্রাম্পের স্বাস্থ্যসেবা বিলের সমর্থনে ২১৫টি রিপাবলিকান ভোট পাওয়া যাবে না। এমন অনিশ্চয়তার মুখে তিনি এবং ট্রাম্প কংগ্রেসে ভোট না করতে সম্মত হন। এটাকে হতাশাজনক বলে বর্ণনা করেছেন স্পিকার পল রায়ান। অন্যদিকে ডেমোক্র্যাটরা এটাকে আমেরিকার জনগণের বিজয় বলে বর্ণনা করেছেন। তারা বলেছেন, ওবামার স্বাস্থ্যসেবা আইন বাতিল করে ট্রাম্পের বিল প্রণয়ন করা হলে যুক্তরাষ্ট্রের নিম্ন আয়ের মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হতেন। গত বৃহস্পতিবারেই কংগ্রেসে ভোটাভুটি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নিজ দলেই বিরোধিতার কারণে সেদিন ভোট করা যায়নি। ট্রাম্প শুক্রবারে ভোট করার ব্যাপারে নিজ দলের সদস্যদের প্রতিই আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন। তাতেও লাভ হয়নি। হোঁচট খেলেন ট্রাম্প।বিবিসি।

 ডেমোক্র্যাটদের দূষছেন ট্রাম্প

কংগ্রেস থেকে নতুন স্বাস্থ্যনীতি প্রস্তাব প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হওয়ায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ডেমোক্র্যাটদের দূষছেন। শুক্রবার কংগ্রেসে প্রস্তাবটি পাস হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সমর্থন না পাওয়ায় তা প্রত্যাহার করে নেন ট্রাম্প।

স্বাস্থ্যনীতি প্রত্যাহারের পর ট্রাম্প মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেন, ‘আমরা ডেমোক্র্যাটদের একটা ভোটও পাইনি। আমরা প্রস্তাব পাসের বিষয়ে নিশ্চিত ছিলাম না। এখনও আমরা নিশ্চিত নই। তাই তা প্রত্যাহার করে নিয়েছি।’ তবে ভবিষ্যতে ডেমোক্র্যাটদের সমর্থন পাওয়া যাবে বলেও আশা প্রকাশ করেন ট্রাম্প। 

হাউস স্পিকার পল রিয়ান জানিয়েছেন, স্বাস্থ্যনীতি পাসের জন্য কংগ্রেসে ২১৫ ভোটের প্রয়োজন হয়। কংগ্রেস সদস্যরা এতে সমর্থন দেননি, তাই তিনি এবং ট্রাম্প বিলটি প্রত্যাহার করে নিতে সম্মত হয়েছেন। 

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, কমপক্ষে ২৮ থেকে ৩৫ জন রিপাবলিকান ট্রাম্পের আমেরিকান হেলথকেয়ার অ্যাক্ট বা ট্রাম্পের নতুন স্বাস্থ্যনীতির বিরোধিতা করেছেন।

 প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতাগ্রহণের পরই নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ‘ওবামাকেয়ার’ বাতিল করে নতুন স্বাস্থ্যনীতি চালু করার তৎপরতা শুরু করেন ট্রাম্প। কিন্তু কংগ্রেসে রিপাবলিকানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা সত্ত্বেও বাধার মুখে পড়েন ট্রাম্প।

উল্লেখ্য, ‘ওবামাকেয়ার’-এ গুরুত্বপূর্ণ সংস্কার এনে ‘আমেরিকান হেলথ কেয়ার অ্যাক্ট’- নামের স্বাস্থ্য বিল উত্থাপন করে ট্রাম্প প্রশাসন। ওবামার স্বাস্থ্যনীতি অনুযায়ী, নিম্ন আয়ের মার্কিন জনগণ, কর্মজীবী ও বেকার উভয়েই ওই স্বাস্থ্যসেবার আওতাভুক্ত ছিলেন। ওবামা প্রশাসনের সময়কার স্বাস্থ্যবিলে অঙ্গরাজ্যগুলো কর্মজীবী ও কাজ খুঁজতে থাকা মার্কিন জনগণের জন্যই স্বাস্থ্যসেবার আবেদন করতে পারত। তবে অঙ্গরাজ্যগুলো স্বাস্থ্যসেবা পেতে কাজের বাধ্যবাধকতা আরোপ করতে রাজি হয়নি। তবে বেশ কয়েকজন রিপাবলিকান গভর্নর কর্মক্ষম জনগণ, যাদের শিশু সন্তান নেই, অথবা নিঃসন্তান, তাদের জন্য কাজ করার বাধ্যবাধকতা আরোপের ক্ষমতা অঙ্গরাজ্যগুলোকে দেয়ার দাবি জানিয়ে আসছেন। ট্রাম্পের ওই প্রস্তাবিত স্বাস্থ্যনীতিতে অঙ্গরাজ্যগুলো নিজেদের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা দেয়ার কথা বলা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ