বৃহস্পতিবার ০৯ জুলাই ২০২০
Online Edition

কয়রা-বেতগ্রাম সড়কের ৩০ কিলোমিটার যান চলচলের অনুপযোগী

খুলনা : কয়রা-বেতগ্রাম সড়কের ৩০ কিলোমিটার অংশজুড়ে এমন খানা-খন্দে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে

খুলনা অফিস: খুলনার কয়রা-বেতগ্রাম আঞ্চলিক সড়কের কয়রা সেতু থেকে কপিলমুনি পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটার যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কের ওই অংশে পিচ উঠে সেখানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে বৃষ্টির পানি জমে ইটের গুড়া ও ধুলা মিলে-মিশে কর্দমাক্ত হওয়ায় যান চলাচল সম্ভব হচ্ছে না।
দেখা গেছে, সড়কটির এমন বেহাল দশায় আশ পাশের স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা পড়–য়া ছাত্র-ছাত্রীরা যানবাহনে করে যাতায়াত করতে পারছে না। এ পথে চলাচলকারি যাত্রীদের বিভিন্ন বিকল্প পথে যাতায়াত করতে হচ্ছে। বর্ষা আসার পূর্বে অগ্রাধিকার প্রকল্পের আওতায় সড়কটি চলাচল উপযোগী করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসি। সম্প্রতি সড়কটি দ্রুত সংস্কারের দাবীতে কয়রা ও পাইকগাছা উপজেলা নাগরিক কমিটি মানববন্ধন করেছে। মানববন্ধনে এলাকার জনসাধারণ, বাস চালক সমিতি, চিংড়ি ব্যবসায়ী সমিতি সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষর্থীরাও অংশ নেয়।
পাইকগাছা নাগরিক কমিটির সভাপতি মোস্তফা কামাল জাহাঙ্গীর বলেন, খুলনা জেলা শহরে পৌঁছাতে দুই উপজেলার বাসিন্দাদের একমাত্র সড়কটি দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। যে কারণে এ পথে যাতায়াতকারী মানুষকে সময় ব্যয়ের সাথে দ্বিগুণ অর্থ খরচ করতে হচ্ছে। সড়কটি দ্রুত সংস্কারের দাবী জানিয়ে মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারি জনসাধারণ অভিযোগ করেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবহেলায় সড়কটি খানা-খন্দে পরিণত হয়েছে।
স্থানীয় বাস চালক সমিতির নেতারা জানান, গত বছর ঈদুল আযহার আগে দুর্ভোগ কমাতে সড়ক ও জনপদ (সওজ) বিভাগ ইট বালি ফেলে সড়কের বড় গর্তগুলো বন্ধ করার চেষ্টা করে। পরে সে সব গর্তে বৃষ্টির পানি জমে ও গাড়ীর চাপে আরও বেশী দুর্ভোগের কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে সড়কে যে কোন যান চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানিয়েছেন তারা।
সড়ক সংস্কারের ব্যাপারে জানতে চাইলে সওজ বিভাগ খুলনার নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ বলেন, সড়কটি সংস্কারের জন্য জোর প্রচেষ্টা চলছে। আশা করছি চলতি মাসের মধ্যে দরপত্র চূড়ান্ত করে কাজ শুরু করা সম্ভব হবে।
খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের সংসদ সদস্য শেখ মো. নুরুল হক বলেছেন, সড়কটির সংস্কার কাজ যাতে দ্রুত শুরু করা যায় তার জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করা হচ্ছে। আশা করছি স্বল্প সময়ের মধ্যে কাজ শুরু হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ