শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

ফ্লাড লাইটের আলোয় উদ্ভাসিত ভাসানি স্টেডিয়াম

স্পোর্টস রিপোর্টার: দীর্ঘ ৩২ বছর পর মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে আর মাত্র নয় দিন পরই বসতে যাচ্ছে এশিয়া কাপ হকির দশম আসর। স্বাগতিক বাংলাদেশসহ এশিয়ার সেরা ৮ দেশ অংশ নিচ্ছে। আগামী ১১ অক্টোবর টুর্নামেন্টর পর্দা উঠবে। ৮ অক্টোবর অংশগ্রহনকারী দলগুলো ঢাকায় আসতে শুরু করবে। টুর্নামেন্টের প্রস্তুতির অগ্রগতি জানাতে গতকাল সোমবার মাঠে চেয়ার পেতে সংবাদ সম্মেলনে বসেছিলো বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের কর্মকর্তারা। আসলে কাজটি তারা করেছেন অপারগ হয়েই। ফেডারেশনের কোনো কক্ষের সামনেই যে পা রাখার জো নেই! সবখানে সংস্কারের ছোঁয়া। ধুলাবালি আর শব্দদূষণ থেকে একটু দূরে গিয়ে খোলা আকাশেই সংবাদ সম্মেলন সেরে ফেললেন কর্মকর্তারা।ইতোমধ্যে টার্ফের চারপাশে মাথা উচুঁ করে দাঁড়িয়ে গেছে ফ্লাডলাইট। পরীক্ষামূলক আলোও ছড়িয়েছে কয়েকদিন। তবে সোমবার সন্ধ্যাটা বাংলাদেশ হকির জন্য ছিল অনেক অপেক্ষা অবসানের। সন্ধ্যায় আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে ফ্লাডলাইটের। প্রথমবারের মতো ফ্লাডলাইটের পরিপূর্ণ আলোয় উদ্ভাসিত হয়েছে মওলানা ভাসানী স্টেডিয়াম। টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক জানালেন, দু-তিনদিনের মধ্যে বসে যাবে স্কোর বোর্ড। পুরোদমে চলছে প্রেসবক্সসহ অন্যান্য সংস্কার কাজ।আর মাত্র নয় দিন বাকী থাকলেও এশিয়া কাপের প্রচার-প্রচারণা এখনো শুরু করতে পারেনি ফেডারেশন। সংবাদ সম্মেলনে ফেডারেশনের অন্যতম সহ-সভাপতি আবদুর রশিদ শিকদার স্বীকার করেছেন তারা সেভাবে প্রচার-প্রচারণা শুরু করতে পারেনি। এখনও রাজধানীর কোথাও শোভা পায়নি টুর্নামেন্টের কোনো ব্যানার-ফেস্টুন কিংবা পোস্টার। প্রয়োজনীয় প্রচার শুরু করতে না পারায় ফেডারেশনের এ সহ-সভাপতি নিজেই হতাশ।টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মামুনুর রশিদ জানিয়েছেন, ‘আমাদের প্রস্তুতি শেষ দিকে। আর তিন-চারদিনের মধ্যেই সব কিছু একটা ভালো পর্যায়ে পৌঁছে যাবে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ