শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

অপহরণকারীদের কবল থেকে ৩৪ দিন পর পালিয়ে এসেছে রূপসার মাদরাসা ছাত্র নয়ন

খুলনা অফিস : নিখোঁজের ৩৪ দিন পর অপহরণকারীদের কবল থেকে পালিয়ে এসেছে খুলনার রূপসার অচিনতলা মদিনাতুল উলুম কওমী মাদরাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র ইব্রাহিম হোসেন নয়ন (৯)।  বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নয়নের পিতা শেখ তৈয়ব আলী বাগেরহাট বাসস্ট্যান্ড থেকে তাকে উদ্ধার করে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর নয়ন মাদরাসা থেকে নিখোঁজ হয় ।
নয়ন জানায়, গত ৩০ সেপ্টেম্বর পড়া মুখস্ত না হয়ায় মাদরাসা শিক্ষক সাইফুল ইসলাম তার দু’হাত গামছা দিয়ে বেঁধে মারপিট করে। ওইদিন দুপুরে বাড়ি গিয়ে ভাত খেয়ে সে মাদরাসায় আসে। দুপুরে মাদরাসার ওযু খানায় ওযু করার সময় হঠাৎ তিন জন অপরিচিত ব্যক্তি তাকে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে মাদরাসার পার্শ্ববর্তী রাস্তায় পার্কিং করা একটি মাইক্রোবাসে ওঠায়। প্রথমে তার মুখে টেপ লাগিয়ে দেয়া হয়। নয়ন চিৎকার করতে লাগলে তার মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে অপহরণকারী চক্রটি। মেধাবী ছাত্র নয়নকে মাইক্রোবাসযোগে রাত ১০টার দিকে মোড়েলগঞ্জের রায়েন্দা এলাকার নির্জন এলাকার একটি কুঁড়ে ঘরে আটকে রাখা হয়। সেখানে তার মতো বয়সী আরেকজন ছেলেও ছিল বলে জানায়। সেখানে এ দু’জনকে ৭/৮ দিন আটকে রাখা হয়। নয়ন আবেগ আপ্লুত কন্ঠে বলে, যে কয়দিন ওই কুঁড়ে ঘরে তাদের আটকে রাখা হয় সেই ক’দিন তাদের ভাত খেতে দেয়া হয়নি। খেতে দেয়া হয় রুটি ও সামুছা। সপ্তাহখানেক পর নয়ন দিনের বেলা ওই কুঁড়ে ঘরের জানালা ভেঙ্গে বাইরে চলে আসে। এরপর ওই এলাকার বিভিন্ন বাড়ি যেয়ে ভাত চেয়ে খেয়ে বেড়াতো এবং রাত হলে এলাকার মসজিদে ঘুমাতো। এভাবে বেশ কয়েকদিন কেটে যায়। গত ১ অক্টোবর পার্শ্ববর্তী ফেরী পার হয়ে বিআরটিসি বাসের ছাদে উঠে বাগেরহাট বাসস্ট্যান্ডে আসে। পরে একজনের কাছ থেকে পাঁচ টাকা চেয়ে নিয়ে তার পিতার কাছে ফোন করে। ওইদিন রাতে সে বাগেরহাট স্ট্যান্ডে রাখা একটি ট্রাকের ভেতর নির্ঘুম রাত কাটায়। পরদিন নয়নের পিতা শেখ তৈয়ব আলী বাগেরহাট থেকে তার ছেলেকে উদ্ধার করে। এ বিষয়টি র‌্যাব-৬ ও সংশ্লিষ্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কে অবহিত করেন তার পিতা।
উল্লেখ্য, এ ঘটনার পর সংশ্লিষ্ট থানায় সাধারণ ডায়েরি  এবং গত ৮ অক্টোবর র‌্যাব-৬’র দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন নয়নের পিতা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ