বুধবার ০৮ জুলাই ২০২০
Online Edition

গৃহবধূকে নির্যাতন 

 

মনিরামপুর (যশোর) সংবাদদাতা: মণিরামপুরে হাড়িভর্তি ফুটান্ত গরম ভাত গায়ে ঢেলে এবং ব্লেড দিয়ে শরীর কেটে এক গৃহবধূকে নির্যাতন চালিয়েছে এক পাষন্ড স্বামী। 

স্বামীর এ নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধু মণিরামপুর সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। মধ্যযুগীয় কায়দায় এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে গত শনিবার পৌর শহরের বিজয়রামপুর গ্রামে।

স্থানীয় ও স্বজরা জানায়, বিজয়রামপুর গ্রামের গোলাম রব্বানীর স্ত্রী আনঞ্জুয়ারা (৩৫) পিতার বাড়িতে যায়। 

এরপর শনিবার দুপুরে পিতার বাড়ি থেকে স্বামীর বাড়িতে এসে দুপুরের ভাত রাধতে দেরি হলে তার উপর মধ্যযুগীয় নির্যাতন চালানো হয়। স্বামী রব্বানী স্ত্রীর উপর ক্ষীপ্ত হয়ে হাড়ি ভর্তি ফুটন্ত গরম ভাত তার শরীরে ঢেলে দেয়। 

এতে আনঞ্জুয়ারার শরীরের পিছনের অংশ পুড়ে ব্যাপক ক্ষতের সৃষ্টি হয়। হাসপাতালের বেডে থাকা আনঞ্জুয়ারার অভিযোগ, তার স্বামী এ ঘটনার পর তাকে চিকিৎসা না করিয়ে উল্টো তাকে ঘরে আটকে রাখে। 

সে আরো বলে কিছুদিন পূর্বে তার স্বামী রব্বানী ব্লে¬ড দিয়ে তার শরীর ক্ষত-বিক্ষত করে। 

নির্যাতনের শিকার আঞ্জুয়ারাকে চিকিৎসার জন্য তার দুলাভাই বাবুল আক্তার ঘটনার দিন রাত ৮ টার দিকে মণিরামপুর হাসপাতালে ভর্তি করেন। তিনি জানান, আনঞ্জুয়ারা যশোর কোতয়ালী থানাধীন সিরাজসিংহ গ্রামের মনিরুউদ্দিন গোলদারের কন্যা। 

হাসপাতালের কর্মরত ডাঃ শফিউল¬াহ সবুজ জানান, তার শরীরের ১০ ভাগ ঝলসে গেছে। তবে বর্তমানে তার শরীরের অবস্থা কিছুটা উন্নত। 

এ ব্যাপারে মণিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোকাররম হোসেন জানান, এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত থানায় কোন লিখিত অভিযোগ হয়নি। তবে অভিযোগ পেলে অবশ্যাি আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ