সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

মিশ্র সার কারখানা স্থাপনে প্রস্তাব দিয়েছে জাপান ---শিল্পমন্ত্রী

 

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশে একটি ‘এনপিকে’ (নাইট্রোজেন. ফসফরাস এবং পটাশিয়াম) মিশ্র সার উৎপাদনের জন্য কারখানা স্থাপনের প্রস্তাব দিয়েছে জাপানের উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান মারুবেনি কর্পোরেশন। এছাড়া রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলের আধুনিকায়ন ও পণ্য বৈচিত্রকরণেও সহায়তা করতে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানটি।

গতকাল রোববার বাংলাদেশে সফররত মারুবেনি কর্পোরেশনের দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়ার আঞ্চলিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নোয়াকি ইজুমি শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুর সাথে বৈঠককালে এ কথা বলেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন শিল্পসচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ্, অতিরিক্ত সচিব বেগম পরাগ, মারুবেনি কর্পোরেশনের ঢাকা অফিসের মহাব্যবস্থাপক আকিহিসা তোমিওকা, প্লান্ট প্রজেক্ট বিভাগের মহাব্যবস্থাপক নাগাহিতু মায়োশি, উপমহাব্যবস্থাপক হিকারি কাওয়াই, ব্যবস্থাপক মোটোয়াকি ইউশিদা।

বৈঠকে বাংলাদেশের শিল্পখাতের উন্নয়নে মারুবেনি কর্পোরেশনের কারিগরি সহায়তার বিষয়ে আলোচনার এক পর্যায়ে প্রতিষ্ঠানটির আঞ্চলিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনে মারুবেনি বাংলাদেশকে সম্ভব সব ধরনের সহায়তা দিতে আগ্রহী। বাংলাদেশে এনপিকে মিশ্র সার উৎপাদনের বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটি ইতোমধ্যে সমীক্ষা চালিয়েছে। এ সার উৎপাদনে জ্বালানি সাশ্রয়ী সার কারখানা স্থাপনে মারুবেনির অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো যেতে পারে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এ সময় সার উৎপাদন শিল্পে আধুনিক প্রযুক্তির প্রয়োগ ও উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কোটেড ইউরিয়া সার উৎপাদন, কৃষি পণ্য বৈচিত্রকরণ, চিনি শিল্পের আধুনিকায়নসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয় আলোচনায় স্থান পায়। মারুবেনি কর্পোরেশনের এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী বলেন, সমীক্ষা প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে মারুবেনি কোনো সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দিলে, শিল্প মন্ত্রণালয় তা যথাযথ গুরুত্বের সাথে যাচাই বাছাই করে দেখবে।

এ প্রস্তাব বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থের অনুকূলে হলে তা দ্রত বাস্তবায়ন করা হবে। তিনি বাংলাদেশের চিনি শিল্পের আধুনিকায়ন এবং পণ্য বৈচিত্রকরণে বাস্তবধর্মী প্রকল্প নিয়ে এগিয়ে আসতে মারুবেনির আঞ্চলিক প্রধান নির্বাহীকে পরামর্শ দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ