শুক্রবার ২৯ মে ২০২০
Online Edition

কয়রায় বেড়িবাঁধে ভয়াবহ ভাঙন ॥ দোকানপাট মৎস্য ডিপো নদী গর্ভে বিলীন

খুলনা অফিস : খুলনার কয়রা উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়নের জোড়শিং বাজারের বেড়িবাধ হঠাৎ নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে। এতে বেড়িবাঁধের পার্শ্বে অবস্থিত ৬ টি দোকান ও ৩ টি মৎস্য ডিপো নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। হঠাৎ ভাঙ্গনের কবলে পড়ায় দোকানে থাকা মালামাল রক্ষা না করতে পেরে অনেক ব্যবসায়ীদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে বেড়িবাঁধ রক্ষায় কাজ করা না হলে যে কোন মুহুর্তে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশংকা করছে এলাকবাসী।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়নের জোড়শিং বাজারের শাকবাড়িয়া নদীর বেড়িবাধ গতকাল শুক্রবার ভোর রাতে হঠাৎ আকস্মিক ভাঙ্গনের কবলে পড়ে। মুহুর্ত্তের মধ্যে নদীর পার্শ্বে থাকা দোকান পাঠ ও মৎস্য ডিপো নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়। এ ছাড়া ঐ ভাঙ্গনের কারনে নদীতে থাকা লঞ্চঘাটের পল্টুনটির জেটি ছিড়ে গিয়ে নদীর মাঝখানে ভাসছে। এর জন্য লঞ্চে চলাচলকারি যাত্রিদের ব্যাপক দুর্ভোগ পোহাতে হবে।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জিএম কবি শামসুর রহমান বলেন, জোড়শিং বাজারের বেড়িবাধ ভাঙ্গনের বিষয়টি পাউবোর উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে বার জানানো হয়েছে। তারপরও তাদের অনিহার কারনে আজকে সাধারন মানুষের এই পরিস্থিতি। তিনি আরও বলেন দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়নের অনেক এলাকার বেড়িবাধ ভয়াবহ ভাঙ্গনের কবলে। এ গুলো বর্ষা মওসুমের আগে সংস্কার করা না হলে আইলার মতো নদী ভেঙ্গে আবারও গোটা এলাকা প্লাবিত হবে।
জোড়শিং বাজারের মুদি ব্যাবসায়ী শরিফুল ইসলাম বলেন,আইলা সব হারিয়ে পাউবোর বেড়িবাধে কোন রকম একটি দোকান তৈরি করে ব্যবসা করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করতাম হঠাৎ নদী ভাঙ্গনে তা সব বিলিন করে দিয়েছে। স্থানীয় এলাকাবাসির দাবি জরুরী ভিত্তিতে নদী ভাঙ্গনে ব্যাবস্থা গ্রহন না করা হলে জোড়শিং এলাকার নদীর বেড়িবাধ সম্পুর্ন নদী গর্ভে বিলিন হয়ে অধিকাংশ এলাকা প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষতি হবে।
পাউবোর আমাদী সেকশন কর্মকর্তা মো. মসিউল আলম বলেন, জোড়শিং বাজারের বেড়িবাধ ভাঙ্গনের সংবাদ পাওয়ার পর ঘটনা স্থান পরিদর্শন করে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।
কয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিমুল কুমার সাহা বলেন, জোড়শিং বাজারের বেড়িবাধ ভাঙ্গন রোধে জরুরী ভিত্তিতে ব্যাবস্থা গ্রহণের চেষ্টা চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ