মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

আমতলী বালিকা বিদ্যালয়ের ৯ মাস বেতন ভাতা বন্ধ বঞ্চিত শিক্ষক কর্মচারীরা

আমতলী (বরগুনা) সংবাদদাতা: বরগুনার আমতলী মফিজ উদ্দিন বালিকা পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীরা দীর্ঘ ৯ মাস যাবৎ বেতন ভাতা ও ২টি উৎসব ভাতা পাচ্ছেন না। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি প্রধান শিক্ষক শাহ আলম কবিরকে বিদ্যালয়ের সরকারী অনুদানের টাকা আত্মসাত, ছাত্রী উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে চাকুরী থেকে বরখাস্ত করে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ দেলোয়ার হোসেনকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করেন। বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক তার বরখাস্তের বিরুদ্ধে মহামান্য হাইকোর্টে রিট পিটিশন করলে মহামান্য হাইকোর্ট তাকে চাকুরীতে পুনঃবহালের জন্য আদেশ দিয়ে রায় প্রদান করেন। ম্যানেজিং কমিটি উক্ত রায়ের বিরুদ্ধে মহামান্য হাইকোর্টে লিভটু আপিল করলে ৯ আগস্ট আপিল শুনানীর দিন ধার্য করেন। ধার্য তারিখে লিভ টু আপিলের কোন শুনানী হয় নি।
এদিকে মহামান্য হাইকোর্ট শাহ আলম কবিরকে প্রধান শিক্ষক পদে বহাল রাখার রায় প্রদান করলেও ম্যানেজিং কমিটি শাহ আলম কবিরকে দায়িত্ব না দিয়ে রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল করেন। শিক্ষক কর্মচারীদের বেতনভাতা প্রদানকারী সোনালী ব্যাংক আমতলী শাখার ব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলাম ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের স্বাক্ষরে বেতন ভাতা প্রদান করতে অসম্মতি জানান। এতেকরে বিদ্যালয়ের ২৮ জন শিক্ষক ও কর্মচারীদের ডিসেম্বর ১৭ থেকে বেতন ভাতা ও ২টি উৎসবভাতা পাচ্ছেননা। বেতন ভাতা না পেয়ে শিক্ষক কর্মচাররিা মানবেতর জীবন যাপন করছেন। বিদ্যালয়ের শিক্ষক শাহনাজ পারভীন জানান, আমরা দীর্ঘ ৯ মাস পর্যন্ত বেতন ভাতা পাচ্ছি না, ঈদ-উল ফিতরের বোনাসও পাইনি, এমনকি ঈদউল আযহার পূর্বে বেতন ভাতা না পেলে আমরা শিক্ষকরা ঈদ উল আযহা করতে পার না।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে অন্য শিক্ষক জানান, দীর্ঘ ৯ মাস পর্যন্ত বেতন ভাতা না পাওয়ায় আমাদের পরিবার পরিজন নিয়ে অত্যন্ত মানবেতর জীবন যাপন করছি। আমরা মামলা মোকদ্দমা বুঝি না, আমরা চাকুরী করেছি, আমরা বেতন চাই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ