মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

কয়লা খনিতে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসীর দাবি নিয়ে ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সমাবেশ

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) সংবাদদাতা: দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লাখনিতে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসীর দাবি দাওয়া নিয়ে ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির এক প্রতিবাদ সমাবেশ ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সভাপতি মো. আলিনুর হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। গত ১১ আগস্ট দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির প্রধান গেটে কয়লা খনির কারনে খনি এলাকা ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীর দাবিদাওয়া নিয়ে ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির আয়োজনে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা আগামী ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির দিনাজপুর-৫ আসনের সম্ভাব্য এমপি প্রার্থী মো. সোলায়মান সামি। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, উত্তরবঙ্গে শিল্প কলকারখানা কম এবং উত্তরবঙ্গে গ্যাস নাই, দেশের একমাত্র কয়লাখনি বড়পুকুরিয়ায় আমরা জমিজমা দিয়েছি,কয়লাখনির কারণে স্কুল, কলেজ,মাদরাসা, মসজিদ. মন্দির সব ধংস হয়ে গেছে। গত জুলাই মাসে কয়লাখনি থেকে প্রায় ২শত কোটি টাকার কয়লা শুখ্য ভাবে লুটপাট করা হয়েছে এর সাথে মন্ত্রী, আমলা ও কয়লা খনির যত বড় কর্মকর্তা জড়িত থাক তাদের দুর্নীতি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে হবে। বর্তমান কয়লাখনিতে অনেক দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা বহাল তবিয়তে চাকুরী করছে তাদেরকে এখান থেকে বদলীর দাবী জানান। তিনি আরো বলেন, ২ মাস ধরে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৩ টি ইউনিট বন্ধ রয়েছে তা চালু করতে হবে। অবিলম্বে বইগ্রাম হয়ে বড়পুকুরিয়া বাজার এবং খয়েরপুকুর হাট পর্যন্ত রাস্তাটি পাকা করতে হবে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামের লোকবল নিয়োগ করা দাবী জানান। প্রধান মন্ত্রী বলেছেন যারাই এই দুর্নীতির সাথে জড়িত থাক তাদের বিচারের আওতায় আনা হবে।
বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, পার্বতীপুর উপজেলার জাতীয় পার্টির প্রবীণ নেতা মো. নুরুল ইসলাম নুরু, দিনাজপুর জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য মো. জহুরুল হক।
অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ৯নং হামিদপুর ইউনিয়নের মো. একরামুল হক মিলন হামিদপুর জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি, হামিদপুর ইউনিয়নের যুব সংহতির সাধারন সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান, যুব সংহতির হামিদপুর ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মো.গোলাম মোস্তফা চৌধুরী, ইউনিয়ন নেতা মো. বেলাল আহম্মেদ,মো. তুহিন, মো. বক্কর,মো. দেলোয়ার, মো. সুলতান মাহামুদ,মো. আলমগীর হোসেন সহ স্থানীয় ২ শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ