মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০
Online Edition

প্রতিবন্ধকতাকে হার মানিয়ে এগিয়ে চলছে কন্ঠশিল্পী মনিরুল ইসলাম 

প্রতিবন্ধীতাকে হার মানিয়ে বহুমুখী প্রতিভার অধিকারি শিল্পী মনিরুল ইসলাম খোকন সঙ্গীতে অবদান রাখায় এবারও সম্মাননা পেলেন। কণ্ঠ সঙ্গীতে সামগ্রিক অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ মানিকগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমি গুণীজন সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন তিনি। এ উপলক্ষে মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিণায় মানিকগঞ্জ শিল্পকলা একাডেমি জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে এ বর্ণাঢ্য সম্মাননা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ শিল্প সংস্কৃতির ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য উক্ত অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন এমপি এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই গুণি শিল্পী খোকনের হাতে এ সম্মননা তুলে দেন। 

খোকন ইতিপূর্বে বিভিন্ন সাংস্কৃতি প্রতিষ্ঠান ও স্কুল থেকেও আরো তিনটি সম্মাননা পেয়েছেন। তিনি বাংলাদেশ বেতারের একাধারে গীতিকার, সুরকার ও কণ্ঠশিল্পী। ১৯৮৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১২শ গান রচনা করেন তিনি। তার রচিত গান দেশের প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পীদের কণ্ঠে ইতিপূর্বে বহুবার প্রচারিত হয়েছে। নিজের সুরে ও নিজের কথায় জাতীয় বেতারে বহু গান গেয়ে চলেছেন। তার মধ্যে সেলিম খান প্রেজেন্টস (সংগীতা) নিবেদিত ‘মন ছুয়ে যায়’ ও ‘দোয়েল সঙ্গীতাঙ্গন প্রযোজিত ‘বুঝলেনা কষ্ট আমার’ দুইটি অ্যালবাম এর মোট ৩১ টি গান ইউটিউবের সার্চ অপশনে মনিরুল ইসলাম খোকন সং লিখে সার্চ করলেই পাওয়া যাবে। নিজের রচিত গান গেয়ে বাংলা সঙ্গীতাঙ্গনের এই উজ্জ্বল নক্ষত্র আরো এগিয়ে যাক খ্যাতির উচ্চ শিখরে তাই যেন হয় সকলের প্রত্যাশা। মনিরুল ইমসলামের জন্ম মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার খান বানিয়ারা গ্রামে। বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী এই শিল্পী ১৯৭৯ ইং সনে মিরপুর কল্যাণপুর রোডে এক মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়ে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে দীর্ঘদিন চিৎিসাধীন থেকে ঘরে ফিরলেও সম্পূর্ণ সুস্থ হতে পারেনি। তার বাম কোমড়ের হাড় ভেঙ্গে যাওয়ায় তিনি এখন শারীরিক প্রতিবন্ধী। 

শিল্পীর এই প্রতিভাকে বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে জাতীয় সম্প্রচার কর্তৃপক্ষ ও মিডিয়াদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন তার এলাকাবাসী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ