রবিবার ১৬ আগস্ট ২০২০
Online Edition

 জৈনপুরী দরবার শরীফ কমপ্লেক্সে পবিত্র আশুরা উপলক্ষে দোয়া মাহফিল

সম্প্রতি ৩/১৪, ব্লক-জি, লালমাটিয়া, মোহাম্মদপুরস্থ রাহমানিয়া জৈনপুরী খানকা (দরবার) শরীফ ও আদর্শ ইসলামী মিশন মহিলা কামিল মাদরাসার উদ্যোগে এক বিরাট ওয়াজ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা ক্বারী রওশন আরা নূরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাহফিলে দোয়া করেন মুজাদ্দেদে জামান, আমীরে সত্যের ডাক, মাদরজাদ ওলী আল্লামা সৈয়দ মাহ্বুবুর রহমান জৈনপুরী পীর সাহেব কেবলা। প্রধান অতিথি ছিলেন অত্র কমপ্লেক্সের আজীবন সদস্য, এতিমের দরদী মিসেস আজীজুন্নাহার নাঈমা। বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক মদীনা প্রবাসী আশেকে শরীয়াত ও তরীকাত মুসাররাত ফাতেমা এবং সমাজ সেবিকা আশেকে রাসূল (সাঃ) মা সায়েলা বিলকিস আলম প্রমুখ। বিশ্ববিদ্যালয় সমতুল্য, এতিমখানা মাদরাসার বিশাল ছাত্রী ও হেফজখানা মাদরাসার ছাত্রদের সমন্বয়ে অনুষ্ঠিত হয় দোয়া মাহফিল। বয়ানে পীর সাহেব কেবলা বলেন, বিশেষ কারণে আল্লাহ তায়ালা মহররম মাস ও আশুরার দিনকে মহিমাম্বিত করিয়াছেন। যুগে যুগে এই দিনে আল্লাহ তায়ালা নবী ওলীদের দোয়া কবুল করে এবং তাদেরকে কঠিন কঠিন বিপদ ও শত্রুমুক্ত করে পৃথিবীর বুকে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। যেমনঃ এই দিনেই আল্লাহ তায়ালা পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন এই দিনেই কিয়ামত সংঘটিত হবে। এই দিনে হযরত নূহ (আঃ) জুদি পাহাড়ে অবতরণ করেন, হযরত ইব্রাহীম (আঃ) নমরুদের আগুনকে ফুলের বাগানে পরিণত করেন। হযরত আইয়ুব (আঃ) রোগ মুক্ত হন। হযরত মুসা (আঃ) ফেরাউনের জুলুম থেকে মুক্তি লাভ করেন অর্থাৎ সদলবলে ১২টি গোত্রের জন্য ১২টি রাস্তার মাধ্যমে নদী পারি দিয়ে বিজয় লাভ করেন এবং ফেরাউনকে সদলবলে নীল নদে ডুবিয়ে মারেন। অনুরূপভাবে প্রত্যেকটি জালেম শাসকের বিচার কিয়ামত পর্যন্ত হতে থাকবে। আশুরার দিন তার জলন্ত স্বাক্ষী। এই দিনে দয়াল নবীজির প্রাণ প্রিয় দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসাইন (রাঃ) ৭২ জন সফর সঙ্গীঁ নিয়ে ৬১ হিজরীর ১০  মহরম কারবালা প্রান্তরে দুশ্চরিত্রবান, বেনামাজি, মদ্যপায়ী ইয়াজিদের হাতে বায়াত গ্রহণ না করে একে একে শাহাদাত বরণ করে সত্যদীনকে উজ্জীবিত রাখার মহান স্বার্থে বাতেল শক্তির নিকট মাথা নত না করে হকের পতাকা চির উড্ডীন রেখে দৃঢ় ভিত্তি স্থাপন করে গেছেন। যাহা উম্মতে মোহাম্মদী (সাঃ) এর জন্য চির স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে থাকবে। তাই আল্লামা ইকবাল বলেন: ইসলাম জিন্দা হোতাহায় হার কারবালাকে বা’দ অর্থাৎ কারবালা ময়দানে আহলে বায়েতের সদস্যদের শাহাদাত বরণ প্রমাণ করে যে, প্রত্যেক বাতেল ও জালেম শক্তির পর আল্লাহর সাহায্যে সত্যের বিজয়ের মাধ্যমে আল্লাহর মনোনীত দ্বীন ইসলাম জিন্দা হয়ে থাকে, ইহাই আশুরার শিক্ষা। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ