বুধবার ০৩ জুন ২০২০
Online Edition

মুন্সীগঞ্জে ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব

মুন্সীগঞ্জ সংবাদদাতা: সারাদেশের ন্যায় মুন্সীগঞ্জেও ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পেয়েছে। ডেঙ্গু রোগের চিকিৎসা দিতে হিমসিম খাচ্ছে সরকারি হাসপাতাল। ডেঙ্গু রোগীর চিকিৎসার সুযোগ নিচ্ছে স্থানীয় ক্লিনিকগুলো। ডেঙ্গু আক্রান্তরা সদর হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও জেলার বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছে।
গত দুই সপ্তাহ ধরে এ এই রোগের বিস্তার চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তের পরিমাণ বহুগুনে বৃদ্ধি পেয়েছে। মুন্সীগঞ্জ শহর ও উপজেলার বেসরকারি ক্লিনিক গুলোতে এ বিষয়ে সরেজমিনে গেলে দেখা যায় অবস্থা সম্পন্ন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীরা চিকিৎসা নিচ্ছেন এবং অনেকেই বাড়িতে অবস্থান করছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে ডেঙ্গু রোগী আক্রান্তের সংখ্যা খুবই কম। মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে এক সপ্তাহের ব্যবধানে অনেক রোগী সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছে। 
এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালের ডাঃ শৈবাল বশাখ জানান, জরুরী বিভাগে ডেঙ্গু রোগীদের কোন তালিকা নেই। তবে বর্হিবিভাগে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বহিঃবিভাগে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত কয়েকজন রোগীর সাথে আলাপকালে জানা যায়, সদর হাসপাতাল থেকে ডাক্তারের পরমর্শ নিয়ে ঔষধ সেবন করছে। তারা আরো জানায়, ইতোপূর্বে তারা ডেঙ্গু জ্বরের রক্ত পরীক্ষা করার জন্য ক্লিনিকগুলির শরণাপন্ন হয়েছে এবং ১৬০০ টাকা করে রক্ত পরীক্ষার ফি দিতে হয়েছে।
উল্লেখ্য, দুদিন পূর্বে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগের রক্ত পরীক্ষা চালু করার প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পূর্বে যারা ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়েছে তাদেরকে ক্লিনিকে ১৬০০ টাকা দিতে হয়েছে। মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে বর্তমান ১০জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছে। তাদের সাথে আলাপ করে জানাযায়, তারা একজন ব্যতীত ৯ জনই ঢাকা থেকে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে এখানে ভর্তি হয়েছে। সদর হাসপাতালে ভর্তি হওয়া বিরাজ (১৭) জানায়, সে ঢাকার কালিগঞ্জে একটি গার্মেন্টস এ কাজ করা অবস্থায় ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়েছে এবং বাড়িতে এসে মায়ের সহযোগিতায় হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। সদর হাসপাতালে ভর্তিরত শওকত আলী (২০) জানায়, সে নারায়নগঞ্জের মেঘনায় ডগইয়ার্ডে কাজ করত। সেখানে সে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়। সদর থানার রামপাল ইউনিয়নের খোরশেদ (৩৫) চারদিন আগে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ